1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

গোপালগঞ্জে হঠাৎ নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়েছে, সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় চিকিৎসক সংকট চরমে

  • Update Time : শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১০ জন পঠিত
স্টাফ রিপোটার কে এম সাইফুর রহমান, 
গোপালগঞ্জে হঠাৎ নিউমোনিয়া সহ ঠান্ডা-সর্দি ও জ্বরের প্রকোপ  বেড়েছে। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটিতে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের বহিঃ বিভাগ বন্ধ থাকায় এবং বিভিন্ন প্রাইভেট চেম্বারে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক চেম্বার না করায় অসুস্থ শিশুদেরকে নিয়ে চরম ভোগান্তি ও হতাশায় ভুগতে দেখা গেছে অসুস্থ শিশুর মা-বাবা ও রোগীর সাথে আসা আত্মীয়-স্বজনকে।
শহরের নামী-দামী ও অভিজ্ঞ চিকিৎসকের চেম্বার ঘুরে জানাগেছে, বছরের এই সময়ে নিউমোনিয়া সহ ঠান্ডা-সর্দি ও জ্বরের প্রকোপ মাত্রাতিরিক্ত হারে বেড়েছে। 
শুক্রবার সকালে শহরের পাবলিক হল মোড়ে ডা.অমৃত লাল বিশ্বাসের চেম্বারে গিয়েও দেখা গেছে শিশু রোগীর প্রচুর চাপ। বার বার অনুরোধ করা সত্ত্বেও রোগী ও তাঁর স্বজনেরা অন্যত্র যাচ্ছেন না, ওনাকে দেখানোর জন্য ব্যাকুল হয়ে ওঠেন। এ বিষয়ে শিশু রোগে স্নাতকোত্তর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. অমৃতলাল বিশ্বাস জানান আমার বয়স হয়েছে, অবসরে গিয়েছি। আশপাশের অন্যান্য শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা ঠিকভাবে চেম্বার করলে এত রোগীর চাপ হয় না। ডাক্তারও তো মানুষ, এতো পেশার নিলে সঠিকভাবে শিশুদের রোগ নিরূপণ করাও অনেক সময় কঠিন হয়ে পড়ে।
একই ঘটনা আজ শুক্রবার গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরেও পরিলক্ষিত হয়েছে। মুকসুদপুরে প্রাইভেট চেম্বারে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা.মণিউল হাবিব ও ঢাকা থেকে আগত স্বাস্থ্য বিভাগের সহকারী পরিচালক ডা.আমিনুল ইসলামের চেম্বারেও আজ সারাদিন শিশু রোগীদের প্রচুর ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ঠান্ডা জনিত রোগ নিয়েই তারা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের চেম্বারে ভিড় করেন।
অসুস্থ শিশুদেরকে ডাক্তার দেখাতে আসা শিশুর অভিভাবকরা আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও জেলা স্বাস্থ্য কমিটির সভাপতি স্যার যদি এ ব্যাপারে একটু আন্তরিক হয়ে হাসপাতলে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের উপস্থিতি ও সরকার প্রদত্ত ঔষুধের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতেন। তাহলে আমরা অসহায়, গরীব মানুষের জন্য একটু উপকার হতো। করোনায় এমনিতেই আমাদের তেমন কোন কাজকর্ম নেই। তার ওপর বাচ্চাদের অসুখ-বিসুখ সত্যিই আমাদের জন্য খুব কষ্টের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।
এ বিষয়ে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ও শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত প্রকল্প পরিচালক ডা. অসিত কুমার মল্লিক জানান, বছরের এ সময়টিতে এমনিতে আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে শিশুরা নিউমোনিয়া সহ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়। এক্ষেত্রে শিশুর মা-বাবাকে একটু সতর্ক ও যত্নবান হতে পরামর্শ দেন।গোপালগঞ্জে এমনিতেই চিকিৎসকের সংকট রয়েছে। এছাড়া সদর হাসপাতালেও বেশ কয়েকজন শিশু বিশেষজ্ঞ রয়েছেন। জরুরি বিভাগে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা.সঞ্জীব কুমার জয়ধর প্রায় সময় দায়িত্ব পালন করেন। যেহেতু এ সময়ে নিউমোনিয়ার প্রকোপ একটু বেশি। সে ক্ষেত্রে জরুরী বিভাগে এবং শিশু ওয়ার্ডে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের উপস্থিতি বাড়ানো সহ চিকিৎসকগণ যাতে একটু বেশি সময় ধরে চিকিৎসা সেবা দেন আমি তাদেরকে এ ব্যাপারে অনুরোধ জানাবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION