1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নতুন বই ‘শেখ হাসিনা: বিমুগ্ধ বিস্ময়’ শিশু অপহরণ মামলায় জয়পুরহাটে এক যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বগুড়ায় কনস্টেবল পদে নতুন নিয়মে যোগ্য প্রার্থী নিয়োগ দেয়া হবে জয়পুরহাট গৃহ নির্মান শ্রমিক ইউনিয়ন কর্তৃক মৃত্যু অনুদান ও বস্ত্র বিতরণ  গোপালগঞ্জে নদীভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে নগদ টাকা ও ত্রাণ সহায়তা প্রদান জয়পুরহাটে দেশীয় মদ ও গাঁজা সেবনের দায়ে গ্রেফতার- ৭   গোপালগঞ্জে হঠাৎ নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়েছে, সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় চিকিৎসক সংকট চরমে পাঁচবিবিতে বিদ্যুৎস্র্পশে যুবকের মৃত্যু শ্রীপুরে ক্যান্সার আক্রান্ত ৮বছর বয়সী হাফেজ ছাত্র জাহিদুল ইসলামের বাঁচার আকুতি সাম্প্রদায়িকতার সমাধিতে অসাম্প্রদায়িক চেতনার কেতন উড়বেই “”মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি

অশ্রুঝরা আগস্ট ফুটে আছে রক্তজবা তার দিকে তাকিয়ে আমরা

  • Update Time : সোমবার, ৯ আগস্ট, ২০২১
  • ১৮ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক, 

অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠন কাজে নেতৃত্ব দিয়ে চলছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে সৃষ্ট দুর্ভিক্ষও মোকাবিলা করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। বঙ্গবন্ধু দেশ ও দেশের মানুষকে জীবনের চেয়ে বেশি ভালোবাসতেন। মানুষের প্রতি অগাধ বিশ্বাস ছিল তার। তিনি কোনোভাবেই বিশ্বাস করতে পারেননি যে, তার স্বাধীন করা দেশের কেউ তাকে হত্যা করতে পারে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত অপশক্তির ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকরা স্বাধীনতার সূতিকাগার বলে পরিচিত ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িটিতে হামলা চালায়। হত্যা করে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের। সেই শোকাবহ আগস্ট মাসের নবম দিন আজ। ১৯৭৫ সালের ৯ আগস্ট ছিল শনিবার।

বঙ্গবন্ধুকে দৈহিকভাবে হত্যা করা হলেও তার মৃত্যু নেই। তিনি চিরঞ্জীব। কেননা একটি জাতিরাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টা এবং স্থপতি তিনিই। যতদিন এ রাষ্ট্র থাকবে, ততদিন অমর তিনি। কবির ভাষায়-‘ধন্য আমরা, দেখতে পাই দূর/দিগন্ত থেকে এখনো তুমি আসো/আর তোমারই প্রতীক্ষায়/ব্যাকুল আমাদের প্রাণ, যেন গ্রীষ্মকাতর হরিণ/জলধারার জন্যে। তোমার বুক ফুঁড়ে অহঙ্কারের মতো/ ফুটে আছে রক্তজবা, আর/ আমরা সেই পুষ্পের দিকে চেয়ে থাকি, আমাদের/চোখের পলক পড়তে চায় না,/অপরাধে নত হয়ে আসে আমাদের দুঃস্বপ্নময় মাথা।’

পাকিস্তানি শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ২৪ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ঐতিহাসিক ভাষণে স্বাধীনতার যে ডাক দিয়েছিলেন তা অবিস্মরণীয়। সেদিন তার বজ কণ্ঠে উচ্চারিত-‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম/এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’ এই অমর আহ্বানেই স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল নিপীড়িত কোটি বাঙালি। সেই মন্ত্রপূত ঘোষণায় বাঙালি হয়ে উঠেছিল লড়াকু এক বীরের জাতি।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কালরাতে ইতিহাসের নৃশংসতম গণহত্যার পর ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরেও বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠেই জাতি শুনেছিল মহান স্বাধীনতার অমর ঘোষণা। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ওই রাতে বঙ্গবন্ধুকে ধানমন্ডির বাসভবন থেকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এরপর মহান মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস তাকে বন্দি থাকতে হয় পাকিস্তানের কারাগারে। তার আহ্বানেই চলে মুক্তিযুদ্ধ। বন্দিদশায় মৃত্যুর খবর মাথায় ঝুললেও স্বাধীনতার প্রশ্নে আপস করেননি এই মহান নেতা। মুক্তিযুদ্ধ শেষে বাঙালির প্রাণপ্রিয় নেতাকে ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয় পাকিস্তান। বীরের বেশে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি তার স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু।

দেশে ফিরে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ার কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখার পাশাপাশি দেশের মানুষকে উন্নয়নের ধারায় সম্পৃক্ত করেন তিনি। মানুষের প্রতি তার অগাধ বিশ্বাস ছিল বলেই সরকারি বাসভবনের পরিবর্তে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের সাধারণ বাড়িটিতে বসবাস করতেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION