z

 
Untitled Document
BREAKING NEWS   || বিনিয়োগের পরিবেশ আকর্ষণীয় করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর      || ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ      || কমছে পদ্মার পানি      || কোটালীপাড়ায় মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন      || জরুরি বিজ্ঞপ্তি      || কোটালীপাড়ায় এক শিক্ষককে নারী কেলেঙ্কারীর অপবাদে বিদ্যালয় থেকে বহিস্কারের চেষ্টা      || কোটালীপাড়ায় দিন দিন করোনা রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে      || কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান      || কোটালীপাড়ায় গলায় বাঁশ ঢুকে ভ্যান চালক নিহত      || কোটালীপাড়ায় জায়গা জমির জেরধরে সীমানা প্রাচীর ভাংচুর      || কোটালীপাড়ায় বাবু হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন      || কোটালীপাড়ার পৌর মেয়রের করোনা জয়      || কোটালীপাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাস দিয়ে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা      || কোটালীপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীর হাতে লাঞ্চিত আজাদ      || কোটালীপাড়ায় ছেলের মারপিটে মা নিহত, গ্রেফতার ৪     
করোনাকাল পেরিয়ে বেদনাক্লিষ্ট হয়ে বেঁচে থাকবে যারা।।আশিক রহমান।
তারিখ: 2020-06-16     | প্রতিনিধি: আশিক রহমান

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অস্ট্রেলিয়া এবং বিশ্বের অনেক দেশে কোভিড-১৯’এর প্রকোপ কমতে শুরু করলেও বাংলাদেশের অবস্থা বেশ আশঙ্কাজনক। অবকাঠামোগত, অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং এমন অনেক প্রতিকূলতার কারণে এ দুর্যোগ মোকাবেলায় বাংলাদেশের পথ অন্যান্য দেশের মতো মোটেও সুগম নয়। ফেসবুকে দেখা দুঃসংবাদের সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলছে। আশংকা যদি সত্যি হয় তাহলে বর্তমান অবস্থা শীঘ্রই আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে।

প্রিয়জনকে হারানো, সে এক ভয়াবহ বেদনা ! মনের যে কোনে এ বেদনার বাস, সেখানে মহামারীর খবর কখনো পৌঁছে না। সে বেদনা চিরন্তন, সর্বগ্রাসী । আমরা তা প্রতিনিয়তই দেখি, কিন্তু এ বেদনার আসল পরিচিতি যার যার নিজস্ব উপলব্ধিতে। অন্যের জীবনে দেখে এর স্বরূপ বোঝা দায়।

প্রসঙ্গ টেনেই বলছি, প্রায়ই দেখা যায়, কোভিড-১৯’এ আক্রান্ত রোগীর মৃতদেহ তার পরিবার গ্রহণ করছে না বলে প্রকাশ্যে তাদের ধিক্কার দেয়া হচ্ছে। পরিবারের কারো মৃতদেহ ফেলে যাওয়া কখনোই কারো জন্য সুখকর অনুভূতি হতে পারে না। মৃতদেহ থেকে রোগ ছড়ানোর আশঙ্কা কম হলেও আমাদের বোঝা উচিত এই ঝুঁকি নেয়ার মতো পরিস্থিতি সবার থাকার কথা নয়।
আমরা এখন যে ক্রান্তিকাল পার করছি, এ ক্রান্তিকালে যদি কোনো সন্তান তার মা-বাবা, তথা আপনজনদের মৃতদেহ গ্রহণ করে বিশেষ সামাজিকতা ও সৎকার করতে ভীত হয়, আমাদের ভেবে দেখা উচিত এ ভয়ের উৎসটি কোথায়।
হয়তো ভয়ের মূল উৎস তার নিজের জীবন নয়। হয়তো সে উদ্বিগ্ন এই কারণে, যে, তার কিছু হলে তার সন্তান অনাথ হয়ে পড়বে। সে নিজে আক্রান্ত হলে সে এ জীবাণু দ্বারা আরো অনেককে সংক্রমিত করে ফেলবে। অন্যান্য ধনী দেশগুলোর মতো যদি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা থাকতো, তাহলে বলতাম আগামী কিছুদিন কোভিড-১৯’এ আক্রান্ত রোগীর মৃতদেহ তার আত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা উচিত। মৃতদেহের বিশেষ সামাজিকতা ও সৎকারের চেয়ে যার যার নিজেকে ঝুঁকিমুক্ত রাখাটাই আমার মনে হয় এই মুহূর্তে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আগামী কিছুদিন কেউ যদি অকারণে ঝুঁকি নিয়ে নিজের এবং অন্যের জীবন বিপন্ন করে তোলে, বরং সেটাই হবে তার জন্য বেশিস্ বার্থপরতা।

কোভিড-১৯’এ হারিয়ে যাওয়া মানুষের কাতারে প্রতিদিন শামিল হচ্ছেন অনেক অবস্থাপন্ন প্রভাবশালী এবং গুরুত্বপূর্ণ লোকজনও। এদের মধ্যে যারা বিতর্কিত, প্রায়ই দেখা যায়, এদের মৃত্যু সংবাদ বেশ ব্যঙ্গাত্মক ভাবে উপস্থাপণ করা হচ্ছে। মৃত্যুর দরজায় দাঁড়িয়েই থাকা একজন মানুষ যখন নিঃশ্বাস নিতে পারেন না, তার থেকে বিপন্ন আর কী পরিণতি তার হতে পারে?
আর একজন বিপন্ন মানুষের জন্য যদি আমাদের মনে দয়ার উদ্রেক না হয়, তাহলে আমাদের নিজেদের মনুষত্বও তো প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়ে। একজন মানুষকে যদি আমাদের সমালোচনা করতেই হয়, তার মৃত্যুর সময়টা এর জন্য কখনোই সঠিক সময় হতে পারে না।

অস্ট্রেলিয়ায় লক ডাউন শিথিল হলেও সরকার বাসায় থেকে কাজ করতে উৎসাহিত করছে। আমরা জুন মাসে চাইলেও আমাদের অফিসগুলো খুলতে পারছি না। সবাইকে বাসা থেকে কাজ চালু রাখতে বলতে হয়েছে। সরকার অনেক সুবিধা দিচ্ছে, এমন কি এমপ্লয়ীদের বেতনের একটা বিশাল অংশ সরকার বহন করছে। বাংলাদেশে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বাসা থেকে কাজ করার সুযোগ নেই। সঙ্গত কারণেই জীবন বিপন্ন হবে জেনেও প্রতিদিন ভোরে বাসা ছাড়তে হচ্ছে অনেককে। সোশ্যাল ডিস্টেন্সি, পরিচ্ছন্নতা, রেগুলার হাত ধোয়ার প্রত্যাশা আর বিধাতার উপর ভরসা করা ছাড়া অনেকের আর কিছুই করার উপায় থাকছে না। অস্ট্রেলিয়া আর বাংলাদেশ, কী যে আকাশ পাতাল পার্থক্য!
একসময় এ মহামারী শেষ হবে। অনেক চেনা মুখ ততদিনে হারিয়ে যাবে। প্রিয়জনকে হারানোর বেদনা বদলে দিয়ে যাবে তাদের সবার জীবনধারা। সাথে সর্ব সাধারণেরও।
পরিবর্তন আসলে শুরু হয়েই গেছে বিভিন্ন আঙ্গিকে। আধুনিক মানবসভ্যতার পথ ঘুরে গেছে এই অল্প কিছুদিনেই। তাই বেদনাক্লিষ্ট হয়ে বেঁচে থাকবে যারা, তারা এই পরিবর্তনের পথ ধরে রচনা করবে এক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ, যারা চলে গেলেন, যাচ্ছেন, তাদের মৃত্যুঋণ অন্তত শোধ হোক বেঁচে থাকা মানুষের এই প্রত্যয়ে।
রিচমন্ড, মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া।





জাতীয়
ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

কমছে পদ্মার পানি

কোটালীপাড়ায় মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

কোটালীপাড়ায় দিন দিন করোনা রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে

কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান

কোটালীপাড়ায় গলায় বাঁশ ঢুকে ভ্যান চালক নিহত

কোটালীপাড়ায় জায়গা জমির জেরধরে সীমানা প্রাচীর ভাংচুর

কোটালীপাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাস দিয়ে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা

কোটালীপাড়ায় আট মাসের অন্তসত্বা গৃহবধু হত্যার অভিযোগ

কোটালীপাড়ায় বিষ পানে ও পানিতে ডুবে দুই জনের মৃত্যু

বিনিয়োগের পরিবেশ আকর্ষণীয় করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
কমছে পদ্মার পানি
কোটালীপাড়ায় মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
জরুরি বিজ্ঞপ্তি
কোটালীপাড়ায় এক শিক্ষককে নারী কেলেঙ্কারীর অপবাদে বিদ্যালয় থেকে বহিস্কারের চেষ্টা
কোটালীপাড়ায় দিন দিন করোনা রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে
কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান
কোটালীপাড়ায় গলায় বাঁশ ঢুকে ভ্যান চালক নিহত
কোটালীপাড়ায় জায়গা জমির জেরধরে সীমানা প্রাচীর ভাংচুর
কোটালীপাড়ায় বাবু হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
কোটালীপাড়ার পৌর মেয়রের করোনা জয়
কোটালীপাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাস দিয়ে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা
কোটালীপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীর হাতে লাঞ্চিত আজাদ
কোটালীপাড়ায় ছেলের মারপিটে মা নিহত, গ্রেফতার ৪
কোটালীপাড়ায় আট মাসের অন্তসত্বা গৃহবধু হত্যার অভিযোগ
 
   Bangladesh Khabor-2017