z

 
Untitled Document
BREAKING NEWS   || কোটালীপাড়ায় অসহায়দের পাশে জেলা পরিষদ সদস্য রিনা মন্ডল      || কোটালীপাড়ায় প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব এক গৃহবধু      || ইবাদুল হক পলাশের সহায়তায় ২০০০ পরিবার পাচ্ছে ঈদ উপহার ও নগদ টাকা।      || বিএসকেএস কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সবুজ শেখের ঈদের শুভেচ্ছা      || গোপালগঞ্জে চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান জামানের রাইচ মিল থেকে ৫ জুয়াড়ি আটক      || ২০০ অসহায় পরিবারের পাশে বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন       || কোটালীপাড়ায় বাবু হত্যাকান্ডের জের ধরে লুটপাট ভাংচুর      || বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শেখ রনি আহমেদ এর ঈদ শুভেচ্ছা      || মানবতার আরেক নাম শেখ রনি আহম্মেদ।      || কোটালীপাড়ায় বিদ্যৃৎস্পৃষ্টে বাবা-ছেলের মৃত্যু      || গোপালগঞ্জে জামিনে মুক্তি পেয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর -আহত-৫      || কোটালীপাড়ায় নিত্য পণ্যের দোকান ছাড়া সব দোকান বন্ধের ঘোষনা      || মানবতার ফেরিওয়ালা সাইফুলের সহায়তায় ২৫০০ পরিবার পাচ্ছে ঈদ উপহার ।      || গোপালগঞ্জে এটিএন বাংলার সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন      || কোটালীপাড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ নিহত     
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, খাদ্যে ভেজালের ভয়াবহতা থেকে আমাদের বাঁচান।।
তারিখ: 2019-05-28     | প্রতিনিধি:

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 


 

 

 

 

চারদিকে শুধু ভেজাল আর ভেজাল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটা এমন পর্যায়ে চলে যাচ্ছে যে এটাকে আরভেজাল খাদ্যবলে আখ্যায়িত করলে যথেষ্ট হবে না। দেহের প্রাণ খাদ্য, সেই খাদ্য ভেজাল, নষ্ট মানুষের হাতে পড়ে বিষাক্ত হয়ে যাচ্ছে। একজন ভোক্তা হিসেবে  বিষয়টা খুবই আতঙ্কের এবং শিশুদের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি!

 

প্রতিকারের চেয়ে নিশ্চয়ই প্রতিরোধ উত্তম। কিন্তু বর্তমানে এমন অবস্থা দাঁড়িয়েছে যে প্রতিকারই একমাত্র পন্থা হয়ে যাচ্ছে প্রতিকার চলছে, চলবে। পাশাপাশি এই অবস্থা থেকে বাঁচার জন্য কিছু প্রতিরোধের পথও অবলম্বন করতে হবে

আমরা সুস্থ স্বাভাবিকভাবে বাঁচতে চাই। যেখানে সবার প্রকৃতি প্রদত্ত খাদ্য নেয়ামতের জন্য কৃতজ্ঞ থাকার কথা সেখানে সবাই ভেজাল, বিষাক্ত খাদ্যের দুষ্ট চক্রে পড়ে খাদ্যের প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। থেকে পরিত্রাণের পথ আসলে কী হতে পারে?

হ্যা আমাদের ও দোষ আছে ইদানিং আসলে আমরা সবাই খুবই সময়ের দারিদ্রতায় ভুগছি। দেখা যাচ্ছে মানুষ যত আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হচ্ছে সময়ের দিক দিয়ে ততোই দরিদ্র হয়ে যাচ্ছে! রেডিমেড জামা কাপড়ের মতো সবাই আমরা ঝটপট তাড়াহুড়া করে সুপার শপ থেকে, রেস্টুরেন্ট থেকে প্রক্রিয়াজাত খাবার কিনে নিজেরা খাচ্ছি, শিশুদের খাওয়াচ্ছি, অতিথিদের আপ্যায়ন করছি যা পরবর্তীতে বুমেরাং হয়ে যাচ্ছে আমাদের জন্য

আমরা সন্তানদেরকে কোয়ালিটি টাইম দিতে পারছিনা। আমাদের কী করা উচিত? নিজে না পারি প্রয়োজনে রাধুনি রেখে হলেও সন্তানদের বাসায় তৈরি খাবারের ব্যাপারে আমাদের উৎসাহিত করা প্রয়োজন। এতে করে সবাই ব্যালান্সড ডায়েট পাবে, রেস্টুরেন্টগুলোতে ভিড় কমবে,প্যাকেটজাত খাবার এর চাহিদা কমবে, শরীরে ক্ষতিকর কেমিক্যালসের আধিক্য কমবে, মানুষের অসুস্থতা কমবে, হেলথ স্প্যান অর্থাৎ সুস্থ থাকার সময়কাল বাড়বে। লাইফস্প্যান বাড়ার সাথে সাথে আসলে হেলথস্প্যান বাড়াটাও খুবই জরুরি। অসুস্থ থেকে ৮০/ ৯০ বছর বাঁচা আসলে কষ্টের। হেলথস্প্যান বাড়ানোর ব্যাপারে আরও বেশি মনোযোগী হওয়া প্রয়োজন

খাবার খেয়ে আসলে স্বস্তি নাই। অবস্থা এমন হয়েছে ১০০ টাকার খাবার খেয়ে ১০০০ টাকা ডাক্তারকে  দিতে হচ্ছে। মনে হচ্ছে দেশে ওষুধের উৎপাদন আরো বাড়ানো লাগবে। ইদানিং চিত্র তো ভয়াবহ! রেস্টুরেন্ট এবং হাসপাতাল অনেকটা সমানুপাতিক হারে বাড়ছে। মানুষ খাচ্ছে আর হাসপাতালে যাচ্ছে, ফার্মেসিতে যাচ্ছে। প্রক্রিয়াজাত প্যাকেটজাত খাবারের উপর আমাদের নেশা কমাতে হবে। নাহলে এক সময় দেখা যাবে প্রাকৃতিক দুর্যোগে যেমন মহা বিপদ সংকেত দেওয়া হয় তেমনি আমাদের দেশে উৎপাদিত খাবারের বেলায়ও মহাবিপদ সংকেত চলে আসবে

কী হচ্ছে এসব? এমন তো আমরা চাই না

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) মাঝে মধ্যেই তাদের জনবল ঘাটতির বিষয়ে বলে থাকে। তারা নির্দিষ্ট সময় পর পর খাদ্য পণ্য টেস্ট এবং রিটেস্ট করাতে সক্ষম হয় না জনবলের অভাবে। আবার অনেক খাদ্যপণ্য বিএসটিআই এর তালিকাভুক্ত নাই। যা অবশ্যই প্রয়োজনীয় জনবল বাড়ানোর মাধ্যমে সম্পূর্ণ করা প্রয়োজন। কোন খাদ্যদ্রব্যই যেন বাদ না পড়ে

বর্তমানে বিএসটিআইয়ের চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট এবং বরিশাল বিভাগীয় পর্যায়ে কার্যক্রম আছে। যা কিনা সময়ের চাহিদা অনুযায়ী অপ্রতুল। প্রতিটি জেলা শহরে বিএসটিআই এর কার্যক্রম থাকা অত্যাবশ্যকীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমান সময়ের উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় এটা  সমাধান সহায়ক হতে পারে

অন্যদিকে, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কতৃপক্ষের কার্যক্রম প্রান্তিক পর্যায় পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন। শুধু রাজধানী বা শহর কেন্দ্রিক মানসিকতা পরিবর্তন করা দরকার

মানসম্মত খাবার উৎপাদনের জন্য ফুড ইন্ডাস্ট্রিগুলোতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ফুড টেকনোলজিস্ট নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। উপযুক্ত জায়গায় উপযুক্ত দক্ষ মানুষের কোনও বিকল্প নাই। ইন্ডাস্ট্রিগুলোতে লোয়ার লেভেল থেকে টপ লেভেল পর্যন্ত সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন স্ট্যান্ডার্ড করা প্রয়োজন যাতে করে তাদের নৈতিক অবক্ষয় না হয় পাশাপাশি প্রতিটা ফুড ইন্ডাস্ট্রিতে ইথিকস পলিসি থাকা এখন সময়ের দাবি

আমাদের দেশে এমন অনেক ফুড ইন্ডাস্ট্রি আছে যেগুলো বিদেশে খাদ্য দ্রব্য রপ্তানি করে দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে। দেশে এখন ভেজাল, বিষাক্ত খাবারের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ শুরু হয়েছে তা কিন্তু আর বাংলাদেশের সীমাবদ্ধ থাকছে না মিডিয়ার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে যাচ্ছে যা পরবর্তীতে দেশের অর্থনীতিতে একটা ডমিনো ইফেক্ট ফেলবে

আসলে সবাই আমরা স্বাস্থ্যের ব্যাপারে অনেক উদ্বিগ্ন

আমার মনে হয় যদি কাঁচামালের মান উন্নত করা হয় সে ক্ষেত্রে  খাদ্যপণ্যের দাম আলটিমেটলি যদি একটু বেড়েও যায় তবু মনে হয় ভোক্তারা সেটা গ্রহণ করবে। কারণ এতে করে তো আর ভোক্তাদের ভেজাল মানহীন খাবার খেয়ে অর্থনৈতিক বোঝা বাড়াতে হবে না

যেসব খাদ্য পণ্যের শেলফ লাইফ (যে সময় পর্যন্ত খাদ্যদ্রব্যের মান অক্ষুণ্ণ থাকে মাস হওয়া উচিত সে সব খাদ্যপণ্য যেন অতিমাত্রায় কেমিক্যাল বা প্রিজারভেটিভ দিয়ে বছর লেভেলিং না করা হয়। ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সৎ হওয়া প্রয়োজন

মোদ্দা কথা হচ্ছে আসলে যদি মনের ভেজাল দূর না হয় তাহলে এই মানবসৃষ্ট খাদ্যের এই দুর্যোগ মোকাবেলা করা কষ্টসাধ্য হবে

খাদ্য উৎপাদনকারী মালিক পক্ষদের নিয়ে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায় থেকে  নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তরভেজাল খাদ্য মুক্ত বাংলাদেশ চাইশীর্ষক বিভিন্ন সম্মেলন করা প্রয়োজন। অন্যদিকেবিভিন্ন ধরনের শাস্তির পাশাপাশি আসলে স্বীকৃতিটাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ

যেসব খাদ্য দ্রব্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সকল কোয়ালিটি প্যারামিটার সঠিকভাবে মিট করবে এবং যাদের খাবারের হেলথ ইম্প্যাক্ট ভালো (প্রয়োজনে সার্ভে করে এটা বের করতে হবে) তাদেরকে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায় থেকে স্বীকৃতি প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করতে হবে। এতে করে অন্যরাও উৎসাহিত হবে

লোকাল ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদেরকেও মোটিভেট করতে হবে। কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাবএর মতো আরও সংগঠনকে দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে হবে, তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের পাশাপাশি কাউন্সেলিং, মোটিভেশন এবং স্বীকৃতি প্রদানের কালচার গড়ে তুলতে হবে

খাদ্যের এই দুর্যোগ মোকাবেলায় বিশেষভাবে যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে খাদ্য পুষ্টি বিভাগ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিভাগ আছে সেই সব শিক্ষকদেরকে, ছাত্র-ছাত্রীদের কে সমস্ত জায়গায় স্বেচ্ছাসেবী কাজে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। সবাই যেন নির্ভেজাল সোনার বাংলা বিনির্মাণে মানুষকে সচেতন করে, সজাগ করে

দেশে এখন সবচেয়ে বেশি যে সেক্টরে জনবল বাড়ানো দরকার তা হচ্ছে খাদ্য পরিদর্শন ,মান উন্নয়ন এবং নিশ্চিতকরণ। এজন্য প্রয়োজনে পদ সৃষ্টি করার মাধ্যমে পর্যাপ্ত  ফুড ইন্সপেক্টর সারাদেশব্যাপী সৈনিকের মতো ছড়িয়ে দিতে হবে। যুদ্ধে কোনওভাবেই হারা যাবে না। আমাদের জিততেই হবে

 

পরিশেষে, ভেজাল বিরোধী আইন কঠোরভাবে প্রয়োগ হলে নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ যেমন আশা করা যাবে তেমনি অসাধু ব্যবসায়ীরাও নিয়ন্ত্রণে থাকতে বাধ্য হবে। তাই বিএসটিআইএ আধুনিক যন্ত্রপাতি সহ উনড়বতমানের পরীক্ষাগার নির্মাণ করতে এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে যথেষ্ট আইন প্রয়োগ করে ভেজালকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি কারাদন্ড প্রদান করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাবো।ভেজাল বিষাক্ত খাবার থেকে নিরাপদ থাকতে ভেজাল বিরোধী আইনের কঠোর প্রয়োগের পাশাপাশি প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করে নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ করতে হবে। আমাদের বাজার থেকে একেবারে ভেজাল পণ্য তুলে দিতে হবে। বিএসটিআইকে ব্যাপারে নিতে হবে সবচেয়ে কার্যকর ভূমিকা। দেশের প্রত্যেকটি কারখানা থেকে খাদ্যদ্রব্য উৎপাদনের সময় বিএসটিআইকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বাজারে ছাড়ার অনুমতি দিতে হবে। রাজধানী ঢাকা সহ জেলা, উপজেলা সহ গ্রাম অঞ্চলের বাজারে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান জোরদার করতে হবে।সর্বোপরি ভেজাল প্রতিরোধ করতে হলে শুধু সরকারের উপর নির্ভর করে না থেকে আমাদেরকে সচেতন হতে হবে। প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ থাকবে শহর থেকে শুরু করে দেশের মফস্বল অঞ্চলের মানুষদেরকে খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে সবাইকে অবহিত করুন। এতে করে সবাই সচেতন হতে পারবে এবং ভেজাল বিরোন্দোলন গড়ে তুলতে সচেষ্ট হবে। পরিশেষে বলতে চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পথে অন্তরায় হলো ভেজাল তাই আসুন সবাই মিলে ভেজাল বিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলি। আর সম্মিলিত কন্ঠে বলি
ভেজাল মুক্ত দেশই হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ।

ইতিমধ্যে আমরা বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে মাদকের বিরুদ্ধে, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সফল হতে দেখেছি। তাই আমরা আশা রাখি আমাদের সুযোগ্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবারও এই ভেজাল, বিষাক্ত খাদ্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সফল হবেন

নিরাপদ, ভেজাল, বিষাক্ত খাদ্য মুক্ত সোনার বাংলাদেশ চাই। আসুন সবাই বদলে যাই, বদলে দিই


লেখক,এম আরমান খান জয়

সভাপতি,গোপালগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাব ।

 





জাতীয়
কোটালীপাড়ায় প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব এক গৃহবধু

প্রবীন সাংবাদিক মোল্যা মহিউদ্দিনের মায়ের ইন্তেকাল

কোটালীপাড়ায় পুকুরের মধ্যে রাখলো স্বাস্থ্যকর্মীকে

গোপালগঞ্জে নতুন করে চিকিৎসক-নার্স করোনা আক্রান্ত

৫ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি!

করোনায় নতুন কেউ আক্রান্ত হয়নি, সুস্থ আরও ৪ জন

কোটালীপাড়ায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৮ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়ায় আসছেন মঙ্গলবার

কোটালীপাড়ায় অসহায়দের পাশে জেলা পরিষদ সদস্য রিনা মন্ডল
কোটালীপাড়ায় প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব এক গৃহবধু
ইবাদুল হক পলাশের সহায়তায় ২০০০ পরিবার পাচ্ছে ঈদ উপহার ও নগদ টাকা।
বিএসকেএস কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সবুজ শেখের ঈদের শুভেচ্ছা
গোপালগঞ্জে চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান জামানের রাইচ মিল থেকে ৫ জুয়াড়ি আটক
২০০ অসহায় পরিবারের পাশে বাংলাদেশ যুব-খ্রিস্টান এসোসিয়েশন 
কোটালীপাড়ায় বাবু হত্যাকান্ডের জের ধরে লুটপাট ভাংচুর
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শেখ রনি আহমেদ এর ঈদ শুভেচ্ছা
মানবতার আরেক নাম শেখ রনি আহম্মেদ।
কোটালীপাড়ায় বিদ্যৃৎস্পৃষ্টে বাবা-ছেলের মৃত্যু
গোপালগঞ্জে জামিনে মুক্তি পেয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর -আহত-৫
কোটালীপাড়ায় নিত্য পণ্যের দোকান ছাড়া সব দোকান বন্ধের ঘোষনা
মানবতার ফেরিওয়ালা সাইফুলের সহায়তায় ২৫০০ পরিবার পাচ্ছে ঈদ উপহার ।
গোপালগঞ্জে এটিএন বাংলার সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন
কোটালীপাড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ নিহত
প্রবীন সাংবাদিক মোল্যা মহিউদ্দিনের মায়ের ইন্তেকাল
 
   Bangladesh Khabor-2017