Untitled Document
|| কমছে পদ্মার পানি      || কোটালীপাড়ায় মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন      || জরুরি বিজ্ঞপ্তি      || কোটালীপাড়ায় এক শিক্ষককে নারী কেলেঙ্কারীর অপবাদে বিদ্যালয় থেকে বহিস্কারের চেষ্টা      || কোটালীপাড়ায় দিন দিন করোনা রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে      || কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান      || কোটালীপাড়ায় গলায় বাঁশ ঢুকে ভ্যান চালক নিহত      || কোটালীপাড়ায় জায়গা জমির জেরধরে সীমানা প্রাচীর ভাংচুর      || কোটালীপাড়ায় বাবু হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন      || কোটালীপাড়ার পৌর মেয়রের করোনা জয়      || কোটালীপাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাস দিয়ে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা      || কোটালীপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীর হাতে লাঞ্চিত আজাদ      || কোটালীপাড়ায় ছেলের মারপিটে মা নিহত, গ্রেফতার ৪      || কোটালীপাড়ায় আট মাসের অন্তসত্বা গৃহবধু হত্যার অভিযোগ      || কোটালীপাড়ায় বিষ পানে ও পানিতে ডুবে দুই জনের মৃত্যু     
তারিখ: 05:02:30 | সময়: | প্রতিনিধি: y

আজ আমার জন্মদিন আলহামদুলিল্লাহ,

ইতিমধ্যে অনেকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা দিয়েছেন। সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
 
এই পৃথিবীতে এমনই একটি দিনে আমি এসেছিলাম, আজ সেই দিন। সেই জন্য আমি আমার সৃষ্টিকর্তা মহান রাব্বুল আল আমিনের কাছে দায়বদ্ধ। তিনি আমায় সৃষ্টি করেছেন তিনিই আমার রব।
আমার মতো একজন অতি ক্ষুদ্র মানুষের জীবনে যদিও জন্মদিনের তেমন কোন গুরুত্ব নেই, তবুও আমার সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহর প্রতি লাখো কোটি শুকরিয়া।
 
আমার প্রাণপ্রিয় বাবা-মায়ের প্রতি সশ্রদ্ধ সালাম ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। যাদের কল্যাণে আমি আজ “এম আরমান খান জয় “। যাদের দেখানো পথে হাঁটছি। যাদের পদচিহ্ন আমার পাথেয়।
আমি সবার কাছে দোয়া চাই, আমি যেন আমার জন্মকে সার্থক করতে পারি আমার কর্মের মাধ্যমে। আমার প্রজন্মের জন্য যেন রেখে যেতে পারি অনুকরণীয় এমন কিছু, যার মাধ্যমে মানবতা সামান্যতম হলেও উপকৃত হয়।
 
আমি যখন আমার পেছনে তাকাই, তখন দিন, মাস, বছর পেরিয়ে চলে যাই সেই অতীতে, যেখানে আমার শুরু। আমার মুখের ভাঙ্গা, ভাঙ্গা কথা আর একটু হাসিতে তৃপ্ত হত সবাই। আমার বাবা-মায়ের কাছে আমাকে নিয়ে কতই না স্বপ্নের জন্ম হয়েছিল তখন!
 
আজ শৈশব, কৈশর আর অনেকটা সময় পেছনে ফেলে যৌবনে আমি। জীবন চলার বাঁকে জন্মদিয়েছি কত রূপকথা। ছোট্ট একটা জীবনে কত ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আছি।!
 
প্রত্যেকটি মানুষের কাছে তার জন্ম দিনের বার্তাটি আনন্দের। আমার কাছেও তাই তেমনই। মানুষের মাঝে আজ আন্তরিকতা,ভালোবাসার বড়ই অভাব। কেউ কাউকে যেন বিশ্বাসই করতে চায় না। এটা আমাদের জন্য দূর্ভাগ্যের।
যখন আপন মানুষগুলোও ভুল বোঝে তখন তা আরও কষ্টের। জন্ম হল মানুষের পৃথিবী জীবনের শুরু। জন্ম ব্যাপারটাকে যত খুঁশির বলে মনে করা হয়, আসলে তা তেমন খুশির নয়। জন্ম হওয়া মানে মৃত্যু ফলের বীজ বোনা।
কিন্তু মৃত্যুকে ভুলে থাকলেই কি সব সমস্যার সামাধান হয়ে যাবে? জন্ম দিনের এতো আনন্দ-কেক কাটা, হৈ হুল্লোরের মাঝে ভুলে যাই, আমার জীবন থেকে খসে পড়ল আরো একটি বছর। ঝরে যাচ্ছে বছরগুলো এক এক করে। হায়াত কমছে।
 
আমার প্রতিটি জন্মদিনেই আমি চেষ্টা করি সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষদের জন্য কিছু করার । চেষ্টা করি শুভাকাক্ষিদের নিয়ে আনন্দে একটি দিন অতিবাহিত করার । এবারে ও ইচ্ছাগুলো এমন থাকলে ও পরিস্থিতি বিপরীতে অবস্থান করছে । ভালো নেই আমরা কেউ ভালো নাই আমার প্রিয় বা্ংলাদেশ । দ্রুত এ সমস্যার সমাধান হোক এমন প্রতাশ্যা । আল্লাহ আমাদের সবাইকে মুক্তি দেন এই মহামারি খেকে । আপনাদের সবার দোয়া ও ভালোবাসা, আমাকে বাঁচিয়ে রাখবে।।।
 
পরিশেষে এ মুহুর্তে ভালো নেই আমরা ভালো নেই আমার প্রিয় বাংলাদেশ ।
এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র জীবাণু। অথচ কী ভয়ংকর এর ক্ষমতা। খাদ্যশৃঙ্খলের সবচেয়ে ওপরের প্রাণী, সভ্যতা ও ক্ষমতার দম্ভ করে বেড়ানো মানুষদের একেবারে নাকানিচুবানি দিয়ে ছাড়ে।
 
করোনা যুদ্ধ ও করণীয়:
ছড়ানো/ বিস্তারের ধরন:
• করোনাভাইরাসও প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সংস্পর্শের মাধ্যমে এক ব্যক্তি থেকে আরেক ব্যক্তিতে ছড়াতে পারে।
 
• বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শের সময় মুখের হাঁচি, কাশি, লালা বা থুতু থেকে সরাসরি ভাইরাসটি এক ব্যক্তি থেকে আরেক ব্যক্তিতে সংক্রমিত হতে পারে।
 
• অন্যদিকে জনসমাগমস্থলে কোনো আক্রান্ত ব্যক্তি হাঁচি-কাশি দিলে বা ভাইরাসযুক্ত হাত দিয়ে ধরলে কাছাকাছি পৃষ্ঠতলে যেমন টেবিলের তল, দরজার হাতল, বাতির সুইচ, পানির কল, খাটের খুঁটিতে বা সেলফোনে ভাইরাস লেগে থাকতে পারে। সেখান থেকে পরোক্ষভাবে অন্যদের মধ্যে সেটি ছড়াতে পারে।
 
লক্ষণ ও উপসর্গ:
• এই ভাইরাসে আক্রান্তদের আপাতভাবে সুস্থ মনে হতে পারে।
• ফ্লু-এর মতো উপসর্গ দেখা যেতে পারে। এসব উপসর্গের মধ্যে রয়েছে জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট, ক্লান্তি ইত্যাদি।
• কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় ঊর্ধ্ব-শ্বাসতন্ত্রের কিছু লক্ষণ—যেমন হাঁচি, নাক দিয়ে পানি পড়া, গলাব্যথা ইত্যাদি।
• মাথা ব্যথা, মাংসপেশিতে বা মাংসপেশির সংযোগে ব্যথা ইত্যাদি।
• গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টাইনাল উপসর্গ যেমন বমি-বমিভাব, বমি, ডায়রিয়া ইত্যাদিও হতে পারে।
 
প্রতিরোধে করণীয়:
১. সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নিয়ম মানতে হবে। করোনাভাইরাস কোনো লক্ষণ-উপসর্গ ছাড়াই দু সপ্তাহের বেশি সময় ধরে যেকোনো ব্যক্তির দেহে তার অজান্তেই বিদ্যমান থাকতে পারে।
 
২. কারও সঙ্গে করমর্দন করা (হাত মেলানো) বা কোলাকুলি করা বা ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এলে এটি ছড়াতে পারে। তাই এগুলো এড়িয়ে চলতে হবে।
 
৩. নাক, মুখ ও চোখ হাত দিয়ে স্পর্শ না করা। কারণ, করোনাভাইরাস কেবলমাত্র নাক, মুখ ও চোখের উন্মুক্ত শ্লেষ্মা ঝিল্লি দিয়ে দেহে প্রবেশ করতে পারে।
 
৪. মানুষ হাত দিয়ে স্পর্শ করে, যেমন দরজার হাতল, কম্পিউটারের কিবোর্ড ও মনিটরের পর্দা, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন বা অন্য কোনো বহুল ব্যবহৃত আসবাব ইত্যাদি নিয়মিতভাবে কিছু সময় পরপর জীবাণু নিরোধক স্প্রে বা দ্রবণ দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।
 
৫. নিয়মিত কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে সাবানের ফেনা তুলে ভালো করে হাত ধোয়ার অভ্যাস তৈরি করা।
 
৬. পরিবেশ পরিষ্কার করে করোনাভাইরাস মুক্তকরণ—যেমন রাস্তায় ও যত্রতত্র থুতু ফেলা যাবে না। কারণ, থুতু থেকে ভাইরাস ছড়াতে পারে।
 
৭. পরিচিত কারও করোনাভাইরাসের লক্ষণ-উপসর্গ দেখা গেলে সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বা জরুরি ফোনে যোগাযোগ করতে হবে, যাতে তাকে দ্রুত পরীক্ষা করা যায় এবং প্রয়োজনে সঙ্গনিরোধ (কোয়ারেন্টিন) করে রাখা যায়।
 
৮. হাসপাতালে ও অন্য কোনো স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীদের অবশ্যই বিশেষ চিকিৎসা মুখোশ ও হাতমোজা পরিধান করতে হবে, যাতে ভাইরাস এক রোগী থেকে আরেক রোগীতে না ছড়ায় এবং চিকিৎসাকর্মী নিজে সংক্রমিত না হন।
 
অবরুদ্ধকরণ বা লকডাউন
যখন আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থাগুলো ব্যর্থ হয়, তখন সরকার বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোনো নির্দিষ্ট অঞ্চল বা সমগ্র দেশের ওপর অবরুদ্ধকরণ (লকডাউন) ব্যবস্থা জারি ও বলবৎ করতে পারে। এ ক্ষেত্রে আমাদের বাসগৃহ থেকে বের হওয়া, পরিবহন ব্যবহার করা, কর্মস্থলে গমন, জনসমাগম হয় এমন স্থলে যাওয়া, অত্যাবশ্যক নয় তাই আমরা ঘরে থাকি ।
 
সরকার সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধজয়ের জন্য। সুধী সমাজের সদস্য হিসেবে আপনি কী উদ্যোগ নেবেন?
 
আমার মতে এগুলো করা যেতে পারে যেমন—
১. প্রতি জেলায় তিনটি ভবন দরকার—
• একটি রোগীদের জন্য, যেখানে থাকতে হবে শয্যা, দিতে হবে নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ।
• একটি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য সেবাদানকারী লোকেদের জন্য। কারণ, এই সময়ে তাঁদের পরিবার ছেড়ে আলাদাই থাকতে হবে।
• একটি ল্যাব ও প্রয়োজনীয় রসদ সংক্রান্ত কাজের জন্য। বেসারকারিভাবেও পিপিই তৈরি করতে হবে।
২. পরিস্থিতি মোকাবিলায় তহবিল তৈরি করতে হবে।
 
সবশেষে, আসুন সবাই সরকার ঘোষিত নিয়মগুলো মেনে চলি, নিজে সুস্থ থাকি ও অন্যকেও সংক্রমণের থেকে সুরক্ষায় সহায়তা করি।
 
এছাড়া নবিজি (সা.) মহামারি থেকে বাঁচতে বেশি বেশি এই দোয়া পড়তে বলেছেন, ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বারাসি, ওয়াল জুনুনি, ওয়াল জুযামি,ওয়া সাইয়ি ইল আসক্কাম’।
 
আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন!

জাতীয়
কমছে পদ্মার পানি

কোটালীপাড়ায় মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

কোটালীপাড়ায় দিন দিন করোনা রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে

কোটালীপাড়ায় স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থান

কোটালীপাড়ায় গলায় বাঁশ ঢুকে ভ্যান চালক নিহত

কোটালীপাড়ায় জায়গা জমির জেরধরে সীমানা প্রাচীর ভাংচুর

কোটালীপাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাস দিয়ে এক গৃহবধুর আত্মহত্যা

কোটালীপাড়ায় আট মাসের অন্তসত্বা গৃহবধু হত্যার অভিযোগ

কোটালীপাড়ায় বিষ পানে ও পানিতে ডুবে দুই জনের মৃত্যু

গোপালগঞ্জে ছাত্রীদের অনৈতিক প্রস্তাব, শিক্ষক বহিস্কার

 
 
  Bangladesh Khabor- 2017