1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১০:২২ পূর্বাহ্ন

সবাই সমান অধিকার নিয়ে থাকবে” প্রধানমন্ত্রী

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৭২ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

দেশবাসীকে মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনায় দৃঢ় থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক দেশ। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সবাই রক্ত ঢেলে দিয়ে এ দেশকে স্বাধীন করেছে।আমরা মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ বলে অন্য ধর্মের মানুষকে অবহেলা করব, এটা কোনোভাবেই উচিত নয়। পবিত্র ইসলাম ধর্মও সেই শিক্ষা দেয়নি। সবার ধর্ম পালনের স্বাধীনতা রয়েছে এবং থাকবে। এই দেশের মাটিতে ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাই সমান অধিকার নিয়েই বসবাস করবে। মহান বিজয় দিবস-২০২০ উপলক্ষে বুধবার বিকালে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দেন শেখ হাসিনা।

এ সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার প্রচেষ্টা সহনশীলতার সঙ্গে মোকাবেলা করার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি। দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে কেউ কেউ কথা ওঠানোর চেষ্টা করেছে।কিন্তু মনে রাখতে হবে, আমরা অসাম্প্রদায়িক দেশ। সবাইকে যে কোনো পরিস্থিতি সহনশীলতার সঙ্গেই মোকাবেলা করতে হয়, সেটাই করতে হবে। আর কে কী বলল না বলল, সেগুলো শোনার থেকে আমরা কতটুকু দেশের জন্য করতে পারলাম সেটিই আমাদের চিন্তায় থাকবে। তাহলেই আমরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারব, সঠিক কাজ করতে পারব। সেই ভাবেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

বিজয় দিবসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণের শপথ গ্রহণের জন্য দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার যে স্বপ্ন ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ তিনি গড়তে চেয়েছিলেন। আমরা জাতির পিতার সেই স্বপ্ন পূরণ করব। আমাদের এটাই প্রতিজ্ঞা হবে। জাতির পিতার আদর্শ বুকে নিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করে এদেশের মানুষের পাশে থাকব। এদেশের মানুষ কখনও কারো কাছে মাথা নত করে চলবে না। বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে সম্মানের সঙ্গে বাঙালি জাতি চলবে, যেটা জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল, সেটাই আমরা পূরণ করব।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রান্তে উপস্থিত থেকে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আরও বক্তব্য রাখেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ও আবু আহমেদ মন্নাফী। গণভবন প্রান্ত থেকে সভা পরিচালনা করেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

জেলখানার মতো আরেকটা বন্দি শিবিরে বসে আছি : আলোচনা সভায় সশরীরে উপস্থিত থাকতে না পারার তার বেদনার কথা তুলে ধরতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার খুব কষ্ট লাগছে দুঃখ লাগছে যে, সবাই ওখানে (আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়) বসে আছে। আর আমি দূরে জেলখানার মতো আরেকটা বন্দি শিবিরে (গণভবন) বসে আছি। এই বন্দি শিবির কতদিন? করোনা নামক এই বন্দিত্ব থেকে দেশ দ্রুত মুক্তি পায় আমরা আল্লাহর দরবারে সেই প্রার্থনাই করি। দ্রুতই করোনার ভ্যাকসিন বাংলাদেশে আসবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, শুধু বাংলাদেশ না, সারা বিশ্বেরই তো একই অবস্থা। কাজেই এখান থেকে কীভাবে মুক্তি আসবে সেটিই বড় কথা।

তবে করোনার ভ্যাকসিন আনার ব্যবস্থা আমরা করে দিয়েছি। ইতোমধ্যে আমাদের চুক্তিও হয়ে গেছে এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ইতোমধ্যে অনুমোদনও দিয়ে দিয়েছে। কাজেই আমরা মনে করি এবং আশা করি খুব তাড়াতাড়িই আমরা ভ্যাকসিন পেয়ে যাব।  অযথা ঘোরাঘুরি করবেন না : অযথা ঘোরাঘুরি না করে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনেই সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, শুধু দলের নেতাকর্মীই নয়, দেশবাসীকেও বলব স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে। সব থেকে বড় সুরক্ষা হচ্ছে সবাই একটু মাস্ক পরে থাকা, হাতটা পরিষ্কার রাখা এবং দূরত্ব বজায় রাখা। ঘোরাঘুরিটা কম করা, বেশি ঘুরঘুর না করে যার যার জায়গায় থেকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে নিয়ে সবাইকে চলতে হবে। এটা আমাদের সংগঠনের নেতাকর্মীদের জন্য যেমন দরকার, তেমনি দেশের মানুষের জন্যও দরকার।

দেশ আজ সব দিক থেকে এগিয়ে যাচ্ছে : দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় আসার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে, তখন দেশের মানুষ উপলব্ধি করতে পারে সরকার হচ্ছে জনগণের সেবক। সরকার জনগণের সেবা করে, জনগণের মঙ্গল করতে পারে, দেশকে উন্নতির দিকে নিয়ে যেতে পারে। আজ আমরা দেশকে উন্নয়নের পথে নিয়ে যেতে পেরেছি। কেননা আমরা জাতির পিতার আদর্শ নিয়ে কাজ করছি। জাতির পিতা বলতেন, ভিক্ষুকের জাতির কোনো ইজ্জত থাকে না। আমরা কারোর কাছে মাথা নত করে চলব না।

জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে আমরা কাজ করে যাচ্ছি বলেই আমরা দেশকে শুধু খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণই নয়, উদ্বৃত্তের দেশে পরিণত করেছি। রিজার্ভ আজ ৪২ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। সব দিক থেকে দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে। করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে সরকার এবং আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোর ভূমিকা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।তিনি বলেন, সরকার হিসেবে আমরা আমাদের দায়িত্বটা পালন করে যাচ্ছি। ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়া হয়েছে। প্রণোদনার মাধ্যমে অর্থনীতিকে গতিশীল করার চেষ্টা করছি। প্রতিটি মানুষের সমস্যা শুনে সেগুলো সমাধানের চেষ্টা করছি। আমরা সরকারের পক্ষ থেকে যেমন কাজ করছি, তেমনি আওয়ামী লীগও কাজ করছে।

শুধু আওয়ামী লীগ নয়, আমাদের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন যেগুলো আছে, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগসহ প্রতিটি সংগঠন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। আ’লীগ সবসময় জনগণের জন্য কাজ করে : ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধিশালী দেশ হিসেবে গড়ে তোলার তার সরকারের দৃঢ় প্রত্যয়ের কথা পুনর্ব্যক্ত করে সরকারপ্রধান শেখ হাসিনা বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা দেশকে বিশ্বের বুকে উন্নত-সমৃদ্ধিশালী দেশ হিসেবে গড়ে তুলব। জাতির পিতা মাত্র সাড়ে তিন বছরে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশে উন্নীত করেছিলেন। আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি হয়েছি। ২০২৪ সাল থেকে এটি কার্যকর হবে, এর জন্য যা যা করার আমরা তা করে যাচ্ছি। এখন যে শিশুটি জন্ম নেবে, তারও সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য তার সরকারের ঘোষিত একশ’ বছরের ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ প্রণয়নের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এ বদ্বীপের জন্য ১০০ বছরের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছি।

আজকে যে শিশুটি জন্ম নেবে, তার সুন্দর জীবন ও ভবিষ্যতের জন্য কী কী করতে হবে, সেসব পরিকল্পনার কথাও এটাতে উল্লেখ করা রয়েছে। কারণ আওয়ামী লীগ সবসময় দেশের জনগণের জন্য কাজ করে, তাদের সুন্দর ও উন্নত জীবনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। জাতির পিতা আর মাত্র পাঁচটি বছর বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে পারত উল্লেখ করে তার কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, জাতির দুর্ভাগ্য, আমাদের স্বাধীনতাবিরোধীরা এবং আমাদের এদেশীয় তাদের দালাল এজেন্ট যারা বা পরাজিত শক্তির খোষামোদি তোষামোদি ও চাটুকার যারা ছিল, যারা স্বাধীনতা চায়নি, যারা পরাধীনতা অর্থাৎ সেই হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর পদতলেই থাকতে চেয়েছিল।

তারা বুঝতে পেরেছিল জাতির পিতার দ্বিতীয় সবুজ বিপ্লবের কর্মসূচি যদি বাস্তবায়ন হয়, তাহলে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা যেভাবে হবে, আর কোনোদিন এই বাংলাদেশকে তারা (পরাজিত শত্রু) কখনও দাবিয়ে রাখতে পারবে না। সেই কারণেই ১৫ আগস্ট, আমাদের জাতীয় জীবনে একটা কালো দিন নেমে আসে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। আওয়ামী লীগকে তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত শক্তিশালী করে গড়ে তোলার জন্য দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে। ইউনেস্কো আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নামে আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদানের কথা ঘোষণা করেছে।এটা বাঙালি জাতি হিসেবে আমাদের জন্য একটা বিশাল প্রাপ্তি। তাই দলের নেতাকর্মীদেরও বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শ বুকে ধারণ করে দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যেতে হবে। করোনাকালে আমরা প্রত্যেক অসহায় মানুষের ঘরে সাহায্য পৌঁছে দিয়েছি, অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে ২১ দফা প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION