1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাহারোলে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজের শুভ উদ্বোধন করেন বগুড়ায় মৎস্যজীবী লীগের বিশেষ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত উজিরপুরে ভোটকেন্দ্র স্থানান্তর নিয়ে চরম উত্তেজনা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা বিরামপুর ১১ মাস পর বেতন-ভাতা  পেল পৌরসভার কর্মকর্তা- কর্মচারীগণ পাঁচবিবিতে সড়ক দূর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু পাঁচবিবিতে কবি ও শিল্পীদের মিলন মেলা গোপালগঞ্জে প্রশিক্ষিত নারীদেরকে আত্ম-কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নগদ অর্থ সহ বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ কুষ্টিয়ায় কারারক্ষীর বদলে ছাগল, পুরুষ ওয়ার্ডে গরু কোটালীপাড়ায় ৯ম সুকান্ত মেলা উদ্বোধণ করলেন জেলা প্রশাসক বিশ্বসেরা তিন পেসারের একজন হতে পারেন মোস্তাফিজ

ভুটান আমাদের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে

  • Update Time : সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৩৬ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ-ভুটানের মধ্যে স্বাক্ষরিত অগ্রাধিকার বাণিজ্য চুক্তি (পিটিএ) উভয় দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরও সুসংহত করবে। দিনটি বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত, কেননা আমরা বিশ্বের কোনো দেশের সঙ্গে এ প্রথম পিটিএ স্বাক্ষর করছি। আর ভুটানই প্রথম দেশ যে দেশটি এদিনে সার্বভৌম এবং স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। এ কারণেই ভুটান আমাদের হৃদয়ে একটি বিশেষ জায়গা দখল করে আছে। গণভবন থেকে রোববার ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রথম পিটিএ স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে দেয়া ভাষণে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখন সময় এসেছে পারস্পরিক সুবিধার জন্য এবং আমাদের নাগরিকদের সামগ্রিক উন্নতি ও কল্যাণের জন্য অসাধারণ সম্পর্ককে আরও বেশি অর্থবহ করে তোলা।’  শেখ হাসিনা বলেন- আমি বিশ্বাস করি, এ চুক্তি কার্যকর হওয়ার পরে বাংলাদেশের জনগণ ভুটানের তরতাজা আপেল, কমলালেবুসহ অন্যান্য তাজা ফলমূল ও শাকসবজি গ্রহণের সুযোগ পাবেন এবং ভুটানের ফ্যাশন সচেতন মানুষ বাংলাদেশ থেকে আরও মানসম্মত পোশাক নিতে পারবেন। বাংলাদেশের অবকাঠামো প্রকল্পগুলো ভুটানের পাথর ব্যবহারে লাভবান হতে পারে এবং বাংলাদেশে ওষুধগুলো ভুটানের স্বাস্থ্য খাতে অবদান রাখতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘আরও অনেক ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে আমরা পারস্পরিক সহযোগিতার সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে পারি। বাংলাদেশ সব সময় তার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা বাংলাদেশের চিলমারী বন্দরের উন্নয়ন করছি, নারায়ণগঞ্জের পানগাঁও ভুটানের জন্য উন্মুক্ত। শুধু তাই নয়, আমাদের তিনটি বন্দর চট্টগ্রাম, মোংলা, পায়রা- ভুটান চাইলে ব্যবহার করতে পারবে। আমাদের সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আঞ্চলিক বিমানবন্দর হিসেবে গড়ে তুলতে এর উন্নয়ন করা হচ্ছে, যা ভুটানের জন্য উন্মুক্ত। শেখ হাসিনা গণভবন থেকে এবং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং সে দেশের রাজধানী থিম্পু থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। ঢাকায় বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে মূল অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এবং ভুটানের অর্থমন্ত্রী লিয়নপো লোকনাথ শর্মা নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশকে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দানকারী ভুটানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তির দিনটিকে দু’দেশ অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরের দিন হিসেবে বেছে নেয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টান্ডি দরজি এবং অর্থমন্ত্রী লিয়নপো লোকনাথ শর্মা অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশের বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রান্তে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প এবং বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট শেখ ফজলে ফাহিম, বাংলাদেশে ভুটানের রাষ্ট্রদূত কুসাব রিনচেন এবং ভুটান প্রান্তে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত একেএম শহিদুল করিম উপস্থিত ছিলেন। ভাষণে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ভুটানের কাছ থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের স্বীকৃতি লাভের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশ-ভুটান সম্পর্ক উদযাপন করতে যাচ্ছি। এ বছরটি আশীর্বাদযুক্ত, কেননা আমরা আমাদের জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদযাপন করছি এবং জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুকের ও ৪০তম জন্মবার্ষিকী।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভুটানের তৃতীয় রাজা এবং জনগণের অবদানের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে, সব বাংলাদেশির হৃদয়ে ভুটানের একটি বিশেষ অবস্থান এবং বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি স্থায়ী জায়গা রয়েছে। রক্তøাত স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য ভুটানের স্বীকৃতি আজও আমাদের হৃদয়কে ব্যাপক আবেগতাড়িত করে।’ ভুটানের স্বীকৃতির স্মৃতি রোমন্থন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তখন রাজধানীর একটি একতলা বাড়িতে ৩ মাসের শিশু সজীব ওয়াজেদ জয় এবং শিশু রাসেলসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে আমরা পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে বন্দি। বাবা বন্দি পাকিস্তানে। শেখ কামাল এবং শেখ জামাল পালিয়ে তখন মুক্তিযুদ্ধে চলে গেছে। আমরা মেঝেতে বসে ছিলাম। ঠিক তখনই এ সংবাদটি পাই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুহূর্তেই সব দুঃখ-কষ্ট ভুলে গেলাম, চিৎকার-চেঁচামেচি, হুল্লোড় এবং কান্না জুড়ে দিলাম। এ ঘটনা কখনও ভুলতে পারব না। এটি এমন একটি উৎসাহব্যঞ্জক, প্রেরণাদায়ক এবং আনন্দময় ঘটনা ছিল যা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না।’ একাত্তরের সেই বিশেষ দিনটির কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে বলেন, ‘সেই দিনটি আমাদের পরিবার এবং বাংলাদেশের জনগণের জন্য একটি বিশেষ দিন ছিল। কাজেই, ভুটান আমাদের হৃদয়ে একটি বিশেষ জায়গা দখল করে আছে, এর বেশি আর আমি বলতে পারব না।’ ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং তার ভাষণে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ এবং বিএসএমএমইউতে প্রায় ১০ বছর অধ্যয়নকালীন বাংলাদেশে অবস্থানের কথা স্মরণ করে বাংলাদেশকে তার ‘সেকেন্ড হোম’ হিসেবে উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে ভুটানের স্বীকৃতির ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনে আমরা আজ একত্রিত হয়েছি। এ উপলক্ষে উভয় দেশের জনগণকে অভিন্দন জানাই।  তিনি বলেন, ভুটান বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে সব সময়ই সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়। কেননা বাংলাদেশ সব সময়ই আমার হৃদয়ের খুব কাছাকাছি রয়েছে। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ সব সময়ই ভুটানের পাশে থেকেছে। আর এ চুক্তি স্বাক্ষরই ভুটানকে অধিক গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণে বাংলাদেশের স্বীকৃতি।’ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ-ভুটান সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে উভয় প্রধানমন্ত্রী একযোগে একটি লোগো উন্মোচন করেন এবং পৃথক কেক কাটেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ চুক্তির ফলে ভুটান তৈরি পোশাক, প্রক্রিয়াজাত কৃষি পণ্য এবং ইলেকট্রনিক্সসহ ১০০টি বিভিন্ন বাংলাদেশি পণ্য রফতানিতে শুল্ক সুবিধা প্রদান করতে সম্মত হয়েছে।অন্যদিকে ফলমূলসহ ৩৪টি ভুটানের পণ্য বাংলাদেশে একই সুবিধা পাবে। পরে আলোচনার মাধ্যমে আরও পণ্য দু’দেশের তালিকায় সংযুক্ত করা হবে। এ চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশের দ্বি-পাক্ষিক পিটিএ এবং এফটিএ স্বাক্ষরের যাত্রা শুরু হবে।২০১৯ সালের ১২-১৫ এপ্রিল ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরের সময় পিটিএ নিয়ে আলোচনা হয়। এর ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ২১-২৩ আগস্ট দু’দেশের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একটি বৈঠক হয়। এরপর ১৯ জুন হয় দ্বিতীয় বৈঠক। এসব বৈঠকের আলোকে সেপ্টেম্বরে বাণিজ্য চুক্তির খসড়ায় অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION