1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভূমিকম্প: ইন্দোনেশিয়ায় নিহত বেড়ে ৫৬ কাকরাইলে মা-ছেলে হত্যার রায় আজ ৪৫টিতে আ.লীগ ৪টিতে বিএনপির প্রার্থী জয়ী নির্বাচন উৎসবমুখর ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু’র সমাধিতে খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের শ্রদ্ধা কুষ্টিয়ায় ভাইয়ের বিরুদ্ধে ভাইকে হত্যার অভিযোগ কুষ্টিয়া পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থীর বিতরণ করা পোলাও জব্দ পায়রা বন্দরের ৭৫ কিমি দীর্ঘ রাবনাবাদ চ্যানেলের নাব্যতা বজায় রাখতে জরুরি রক্ষণাবেক্ষন ড্রেজিং উদ্বোধন কুষ্টিয়ার পৌর নির্বাচনে ৩টি নৌকা ১টিতে মশাল বিজয়ী জয়পুরহাট জেলা পুলিশের উদ্যোগে “দুঃস্থ ও ছিন্নমূল শীতার্থ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ”

বাংলাদেশ হবে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধ

  • Update Time : সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৯ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সারা দেশে শক্তিশালী যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠার অংশ হিসেবে আমরা দেশব্যাপী রেল যোগাযোগ আরও সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছি। যাতে স্বল্প খরচে পণ্য পরিবহন এবং মানুষের যাতায়াতে সুবিধা হয়। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ হবে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধ। রোববার ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু’র ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে তিনি এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড় সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদে আয়োজিত মূল অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেন, জাতির পিতা বলেছিলেন বাংলাদেশ হবে প্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড। অর্থাৎ বাংলাদেশ হবে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধ। আর সেই সেতুবন্ধ তৈরি করতে হলে ট্রান্সএশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে আমাদের সংযুক্ত হতে হবে। ট্রান্সএশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে যখন আমরা সংযুক্ত হব তখন রেলের এ নেটওয়ার্ক বিরাট কাজ দেবে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, তিস্তা নদীর ওপরের রেলসেতুতে অন্য গাড়ি চলার কোনো সুযোগ ছিল না। এজন্য সেখানে পৃথক সড়ক সেতু নির্মাণ করেছি। ভৈরবে রেললাইনের ওপর দিয়ে একটা করে গাড়ি পার হতো। সেখানেও পৃথক সড়ক সেতু করে দিয়েছি। কালুরঘাটেও রেলসেতুর পাশাপাশি পৃথক সড়ক সেতু হয়েছে। এভাবে সারা দেশে রেল যোগাযোগকে উন্নত, আধুনিক ও বহুমুখী করার উদ্যোগ নিয়েছি। তিনি বলেন, সারা দেশে আমরা রেলের নেটওয়ার্ক তৈরি করতে চাচ্ছি। একেবারে ঢাকা থেকে বরিশাল, পটুয়াখালী হয়ে পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেললাইন নিয়ে যাব। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সেখান থেকে কক্সবাজার ও টেকনাফ পর্যন্ত রেললাইন যাবে। এতে দেশের অর্থনীতি আরও শক্তিশালী ও মজবুত হবে। তিনি বলেন, রেলপথ, সড়ক পথ, আকাশ পথ সবগুলোর উন্নয়নে আমরা ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। যাতে মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রাখতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে আমি খুবই আনন্দিত, কেননা রেলসেতু করার ব্যাপার নিয়ে আমাকে অনেক তর্ক করতে হয়েছে, অনেক দেন-দরবার করতে হয়েছে। আজকে একটা আলাদা সেতু হয়ে যাচ্ছে। এর ফলে আমি মনে করি দেশের অভ্যন্তরীণ আর্থসামাজিক উন্নয়ন তো হবেই; তেমনি আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিকভাবেও আমরা আরও সমৃদ্ধ হব। যা দেশকে আরও উন্নত করবে।’ এ সময় দাতাগোষ্ঠীর প্রেসক্রিপশনে বিএনপির রেল বন্ধ করে দেয়ার প্রচেষ্টার উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তিনি নিজের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু সেতুর সঙ্গে রেল সংযোগের ব্যবস্থা করেছেন। আর এখন দাতাগোষ্ঠীই সেখানে পৃথক রেলসেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে।’ একের পর এক রেলস্টেশন বন্ধ করে দিয়ে রেল কর্মচারীদের কর্মচ্যুতি ঘটানোর প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, ‘রেলকে প্রায় গলাটিপে হত্যা করতে গিয়েছিল বিএনপি।’ শেখ হাসিনা বলেন, এরপর আমরা ক্ষমতায় এসে রেলকে জীবিত করেছি। এখন রেলই মানুষের সব থেকে বড় ভরসা। রেল সবকিছুতে মানুষকে সুযোগ করে দিচ্ছে। যা অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রাখবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার সারা দেশে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করে। নতুন বগি, ক্যারেজ, ইঞ্জিন আমদানির পাশাপাশি নতুন রেলপথ স্থাপন করা হয়। কিন্তু ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে অগ্নিসন্ত্রাসের নামে এ রেলের ওপরই বিএনপি-জামায়াত সবচেয়ে বড় আঘাতটা হানে। তিনি বলেন, ‘১৯৯৬ সালে জাপান যাওয়ার পর দেশটি প্রধানমন্ত্রীর জানতে চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি খুলনা ও বাগেরহাটের মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী রূপসা সেতু এবং পদ্মা সেতু নির্মাণে জাপানের সহযোগিতা চান। এ সময় জাপানের প্রধানমন্ত্রী রাজি হয়ে জানতে চান প্রথম কোনটা করা হবে। যেহেতু রূপসা সেতু তাড়াতাড়ি হবে, আর পদ্মা খরসে াতা নদী, এটার সমীক্ষায় সময় লাগবে, সেতু বানাতেও সময় লাগবে, তাই রূপসা সেতুর কথাই তিনি আগে বলেন।’ তিনি বলেন, ‘আমি যখনই জাপান গিয়েছি তখনই জাপান সরকার আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। এজন্য বিশেষভাবে আমি জাপান সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।’ সর্বশেষ তিনি যখন জাপান সফর করেন তখন শিনজো আবে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। যিনি দুই হাত খুলেই বাংলাদেশকে সহযোগিতা করেছেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাকে ও জাপানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। তারা সবাই বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু।’

যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু সেতুর উজানে ১৬ হাজার ৭৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ দশমিক ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে সত্যি আমি খুবই আনন্দিত। আজ থেকে যমুনা নদীর ওপর পৃথক রেলওয়ে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। এ সেতু নির্মাণের ফলে আমি মনে করি দেশের অভ্যন্তরীণ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন তো হবেই আন্তর্জাতিকভাবেও আমরা লাভবান হতে পারব। এ সময় সবার উদ্দেশে তিনি বলেন, আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে দেশের মানুষের ভাগ্যের আরও উন্নয়ন করতে হবে। তাহলেই জাতির পিতার কাঙ্ক্ষিত উন্নত ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়তে আমরা সক্ষম হব, ইনশাআল্লাহ।’

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড় সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদে আয়োজিত ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বক্তৃতা করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস গণভবন প্রান্ত থেকে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন। মূল অনুষ্ঠানস্থলে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, স্থানীয় সংসদ সদস্য, উন্নয়ন সহযোগী জাপানের জাইকার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রেলপথ মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং সাধারণ জনগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতুর ওপর একটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

রেলপথ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু সেতুর ৩০০ মিটার উজানে নির্মিত হচ্ছে ডাবল লেনের ৪ দশমিক ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে বঙ্গবন্ধু রেলসেতু। জাপান ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে ১৬ হাজার ৭৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে রেলসেতুটি নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে জাইকা। এর নির্মাণ কাজ ২০২৫ সাল নগাদ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এ সেতু দিয়ে ১০০ কিলোমিটার বেগে একই সঙ্গে দুটি ট্রেন চলাচল করতে পারবে। উন্মুক্ত হবে সব ধরনের পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল। ফলে সময় সাশ্রয় হওয়ার পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং ব্যবসা-বাণিজ্যেরও প্রসার ঘটবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION