1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভূমিকম্প: ইন্দোনেশিয়ায় নিহত বেড়ে ৫৬ কাকরাইলে মা-ছেলে হত্যার রায় আজ ৪৫টিতে আ.লীগ ৪টিতে বিএনপির প্রার্থী জয়ী নির্বাচন উৎসবমুখর ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু’র সমাধিতে খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের শ্রদ্ধা কুষ্টিয়ায় ভাইয়ের বিরুদ্ধে ভাইকে হত্যার অভিযোগ কুষ্টিয়া পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থীর বিতরণ করা পোলাও জব্দ পায়রা বন্দরের ৭৫ কিমি দীর্ঘ রাবনাবাদ চ্যানেলের নাব্যতা বজায় রাখতে জরুরি রক্ষণাবেক্ষন ড্রেজিং উদ্বোধন কুষ্টিয়ার পৌর নির্বাচনে ৩টি নৌকা ১টিতে মশাল বিজয়ী জয়পুরহাট জেলা পুলিশের উদ্যোগে “দুঃস্থ ও ছিন্নমূল শীতার্থ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ”

মহাপ্রয়াণে মহানায়ক ম্যারাডোনা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬১ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

আমি হয় সাদা নয়তো কালো। আমার জীবনে কখনোই আমি ধূসর হবো না।’ কথা রেখেছেন দিয়েগো ম্যারাডোনা। জীবনের ধূসরধূলিময় পথ পেরিয়ে এসে ফুটবলের আলোকিত চৌকাঠে, নান্দনিক সৌকর্য ও শিল্পসুষমায় আমজনতার খেলাটিকে মায়াবী রূপ দিয়েছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র ম্যারাডোনা। ফুটবল তার পায়ের স্পর্শে নৃত্যের ফোয়ারা ছোটাতো। অসুখ-বিসুখ লেগেই ছিল। তাই বলে এত তাড়াতাড়ি এই গ্রহের তাবৎ ফুটবলানুরাগীকে কাঁদিয়ে চলে যাবেন তিনি! বুধবার রাতে বাংলাদেশের মানুষ যখন নিদ্রাদেবীর কোলে আশ্রয় নেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তখনই বজ্রাঘাত হয়ে আসে দুঃসংবাদ-ম্যারাডোনা আর নেই। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মহানায়ক। তার বয়স হয়েছিল ৬০। দীর্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন ম্যারাডোনা। বার্তা সংস্থা এএফপিসহ একাধিক সংবাদমাধ্যম নিশ্চিত করেছে তার মৃত্যুর খবর।

ম্যারাডোনার মৃত্যুতে দেশটির সরকার তিনদিনের শোক ঘোষণা করেছে। আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেস এক শোকবার্তায় বলেন, ‘তিনি শুধু আমাদের আনন্দই দিয়েছেন। আমরা তার কাছে ঋণী। রাজ্যের সব দুয়ার দিয়েগোর জন্য খোলা।’ ম্যারাডোনার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক বার্তায় তিনি বলেন, ‘ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের হৃদয়ে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন এবং যুগে যুগে তার ক্রীড়া নৈপুণ্য ভবিষ্যৎ ফুটবল খেলোয়াড়দের অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে।’ মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের আটদিন পর বুয়েনস আয়ার্সের হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন ’৮৬ বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টিনার কিংবদন্তি ফুটবলার। এরপর তাকে ভর্তি করা হয় একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে। সেখানে তার চিকিৎসা চলছিল।

কাল যুক্তরাজ্য সময় বিকেলে আর্জেন্টাইন নিউজ আউটলেট ক্লারিন প্রথম প্রচার করে ম্যারাডোনার মৃত্যুর খবর। পরে তার আইনজীবী সংবাদমাধ্যমকে জানান, বাড়িতেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ‘হ্যান্ড অব গড’-এর অমর শিল্পী। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ায় এ মাসের শুরুতে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে। জরুরি ভিত্তিতে অস্ত্রোপচার হয়েছিল তার। গত ১১ নভেম্বর ছাড়া পেয়েছিলেন হাসপাতাল থেকে। ম্যারাডোনার আইনজীবী মাতিয়াস মোরলা তখন বলেছিলেন, জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছেন আর্জেন্টাইন ফুটবল নক্ষত্র। কঠিনেরে ভালোবেসে শেষ পর্যন্ত অন্তর্লীন হলেন অনন্তলোকে। আকাশ থেকে খসেপড়া উজ্জ্বল নক্ষত্রের মতো দূরদেশে হারিয়ে গেলেন ফুটবলের জাদুকর। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে ফুটবলবিশ্বে। একের পর এক শোকবার্তা আসছে। যেন শোকবার্তা নয়, আকাশে একগুচ্ছ নক্ষত্র। সেই নক্ষত্ররাজির মাঝে কোথাও নতুন বসতি গড়েছেন ম্যারাডোনা। ব্রাজিলীয় ফুটবল কিংবদন্তি পেলে থেকে শুরু করে ইংল্যান্ডের গ্যারি লিনেকার এবং আরও অনেকে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মহানায়কের মহাপ্রয়াণে।

‘কালো মানিক’ পেলে এক শোকবার্তায় বলেছেন, ‘আশা করি, একদিন আকাশে একসঙ্গে খেলব আমরা।’ ইংল্যান্ডের সাবেক স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকার এক টুইটবার্তায় বলেছেন, ‘আর্জেন্টিনা থেকে খবর এলো ম্যারাডোনা আর নেই। আমার প্রজন্মের সেরা ফুটবলার। তর্কাতীতভাবে সর্বকালের সেরা। অবশেষে ঈশ্বরের হাতে নিজেকে সঁপে দিয়ে এবার হয়তো শান্তি পাবে।’
ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো পৃথক এক শোকবার্তায় বলেছেন, ‘আজ আমি এক বন্ধুকে বিদায় জানালাম। চিরন্তন প্রতিভাকে বিদায় জানালাম। সর্বকালের সেরা একজন অতুলনীয় জাদুকর। খুব তাড়াতাড়ি চলে গেলেন। এই শূন্যতা কখনও পূরণ হওয়ার নয়। শান্তিতে ঘুমান। আপনাকে কখনও ভোলা যাবে না।’

ম্যারাডোনার ফুটবলজীবন ঘটনাবহুল। ১৯৮৬ মেক্সিকো বিশ্বকাপে তিনি মন্ত্রমুগ্ধ করে দিয়েছিলেন গোটা ফুটবলবিশ্বকে। আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল সেবার তার নেতৃত্বে এবং একক নৈপুণ্যে। ১৯৯০ ইতালি বিশ্বকাপেও তিনি আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে তুলেছিলেন। কিন্তু শিরোপা এনে দিতে পারেননি। ১৯৯৭ সালে ফুটবলকে বিদায় জানান ম্যারাডোনা। শুরু করেন কোচিং। ২০০৮ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের কোচ ছিলেন তিনি। মৃত্যুর সময়ও ছিলেন আর্জেন্টিনার ঘরোয়া ক্লাব হিমনাসিয়া দি লা প্লাটার কোচ। অনেকের মতে, তিনিই বিশ্বের সর্বকালের সেরা ফুটবলার। তবে বর্ণিল খেলোয়াড়ি জীবনে বিতর্কও ছায়াসঙ্গী হয়েছে তার। ১৯৯৪ আমেরিকা বিশ্বকাপে ডোপ পরীক্ষায় ধরা পড়ার পর তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছিল। মাদকাসক্তির কারণে দীর্ঘ সময় ভুগতে হয়েছিল তাকে। ওজনও বেড়ে গিয়েছিল। মদ্যপানে আসক্তির জন্যও সমস্যায় পড়েছিলেন তিনি।

ম্যারাডোনা নামটা ঠোঁটে এলেই ফুটবলপ্রেমীদের মনে পড়ে ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যারাডোনার দুটি দু’রকম গোলের স্মৃতি। প্রথমটি ‘হ্যান্ড অব গড’ নামে পরিচিত এবং বিতর্কিত। রিপ্লেতে দেখা গিয়েছিল, ম্যারাডোনা হাত দিয়ে বল জালে জড়িয়েছিলেন। সেই গোলকেই ‘হ্যান্ড অব গড’ বলেছিলেন ম্যারাডোনা। বলেছিলেন, ‘ওটা আমার নয়, ঈশ্বরের হাত ছিল।’ তবে সেই ম্যাচেই তার দ্বিতীয় গোল ছিল চোখজুড়ানো। ফ্রেমে বাঁধিয়ে রাখার মতো। একের পর এক ফুটবলারকে কাটিয়ে গোল করেছিলেন তিনি, যা মুগ্ধতায় ভরিয়েছিল ফুটবলরসিকদের।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION