1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

কর্মকর্তার সংখ্যা কমানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • Update Time : বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৯৭ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

ঘাস চাষ শিখতে বিদেশ সফরে কর্মকর্তার সংখ্যা ও ব্যয় কমানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে এ নির্দেশ দেন তিনি । ‘প্রাণিপুষ্টির উন্নয়নে উন্নত জাতের ঘাস সম্প্রসারণ ও লাগসই প্রযুক্তি হস্তান্তর’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ঘাস চাষ শিখতে ৩২ কর্মকর্তার বিদেশ সফরের প্রস্তাব করা হয়। সেখানে এই সফর বাবদ ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ চাওয়া হয়। বৈঠকে প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

প্রসঙ্গত, এই বিদেশ সফর নিয়ে গত ২০ নভেম্বর ‘৩ কোটি ২০ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব : ঘাস চাষ শিখতে বিদেশ যাবেন ৩২ কর্মকর্তা’ শিরোনামে যুগান্তরে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। এ বিষয়ে ব্রিফিংয়ে জানতে চাইলে পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র সচিব জানান, প্রকল্পটির মাধ্যমে ৩২ কর্মকর্তার বৈদেশিক প্রশিক্ষণের প্রস্তাব করা হয়। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে একনেকের নজরে আনা হয়েছে। আলাপ-আলোচনার পর প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিদেশ সফর একান্তই প্রয়োজন হলে কর্মকর্তার সংখ্যা কমাতে হবে।

যাদের পাঠানো হবে তারা যেন এই ঘাস চাষ সংশ্লিষ্ট (ওই ডিপার্টমেন্টের) কর্মকর্তা হন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সেই সঙ্গে বিদেশ সফরে ব্যয়ও কমাতে হবে। আসাদুল ইসলাম বলেন, যে ৩২ জন বিদেশ যাবেন তাদের অনেকেই সংশ্লিষ্ট ডিপার্টমেন্টের নয়। তাই প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সংশ্লিষ্ট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তাদেরই পাঠাতে হবে। সূত্র জানায়, বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিদেশ সফরের বিষয়টি তুলে ধরেন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম।

এ সময় তিনি বলেন, যেসব কর্মকর্তা এই সফরে যাবেন তাদের অধিকাংশরই এ কাজে সংশ্লিষ্টতা নেই। এত টাকা সফরের জন্য ব্যয় না করে গবেষণায় ব্যয় করলে ভালো হতো। সেই সঙ্গে তিনি প্রকল্পের আওতায় পারা ও জার্মান ঘাস চাষের বিরোধিতা করেন। কেননা এই দুই ঘাস সাধারণত জলাভূমিতে হয়। এর মধ্যে শামুক লেগে থাকে ফলে এ ঘাস খেলে গরুর লিভার নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এক্ষেত্রে ভুট্টা গাছ ও নেপিয়ার ঘাস চাষের ওপর জোর দেয়ার অনুরোধ জানান। এ পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রকল্প মানেই যেন বিদেশ সফর থাকতেই হবে। বহুবার এ বিষয়ে বলেছি। কর্মকর্তারা বিদেশে যাবেন ঠিক আছে, কিন্তু যাদের প্রয়োজন নেই তারা কেন যাবেন।   ব্রিফিংয়ে সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম আরও জানান, মুষ্টিমেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ না দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেছেন একক বা মুষ্টিমেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যখন একাধিক প্রকল্পের কাজ পায় তখন প্রকল্পের বাস্তবায়ন বিলম্বিত হয়।এজন্য কতগুলো প্রতিষ্ঠান কাজ করছে, কোন কোন প্রকল্পের কাজ করছে, কোন প্রতিষ্ঠান কতটা প্রকল্পে কাজ করছে এবং সময়মতো কাজ শেষ করেছে কি না এজন্য একটি তালিকা তৈরি করতে হবে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলো এই তালিকা করে প্রকাশ করবে। বিশেষ করে রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়ন সংক্রান্ত প্রকল্পের ক্ষেত্রে এরকম ঘটনা ঘটছে। এজন্য কোনো প্রতিষ্ঠান যদি কাজ পায়, সেই প্রতিষ্ঠানের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নতুন করে কাজ না দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।দুটি উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী এমন নির্দেশনা দিয়েছেন। এক হচ্ছে নতুন নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যাতে গড়ে উঠতে পারে। দুই হচ্ছে কাজগুলো সময়মতো বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।

তিনি আরও জানান, করোনা ভ্যাকসিনের বিষয়ে বিশেষ উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এক্ষেত্রে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, শুধু ভ্যাকসিন সংগ্রহই নয়, এর যথাযথ সংরক্ষণেও গুরুত্ব দিতে হবে এবং বেশি সংখ্যক মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। যাতে সঠিকভাবে পরিবহন, সংরক্ষণ ও প্রয়োগ করা যায় এজন্য যারা ভ্যাকসিন প্রয়োগ করবেন তাদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এছাড়া ভ্যাকসিনের কারণে যেসব বর্জ্য উৎপাদন হবে (তুলা, সিরিঞ্জ ইত্যাদি) সেগুলো যথাযথভাবে অপসারণ ও ব্যবস্থাপনা করতে হবে। কেননা এটি একটি বিশেষ ধরনের ভাইরাসের ভ্যাকসিন। এভাবেই করোনার সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবেলা করতে হবে। অনুমোদন পাওয়া খুরুসকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পে জলবায়ু উদ্বাস্তু এবং বিমানবন্দর সম্প্রসারণে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের অগ্রাধিকারেরও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এক্ষেত্রে বলেছেন, ওইখানে যারা উদ্বাস্তু ও বিমানবন্দরের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের তালিকা রয়েছে। এই তালিকাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। যাতে সরকারি বাসভবন হচ্ছে বলে বাইরে থেকে এসে কেউ যেন সুযোগ না পায়। এছাড়া রাস্তা টেকসই করতে হবে। এজন্য রাস্তা থেকে পানি নেমে যাওয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। রাস্তার ধারে পর্যাপ্ত গাছ লাগানো এবং বিশ্রামাগার রাখতে হবে। যাতে যারা দীর্ঘসময় যানবাহন চালনা করবেন তারা বিশ্রাম নিতে পারেন। স্মার্ট কার্ড প্রকল্প বিষয়ে সমন্বিত কার্যক্রমের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, জাতীয় পরিচয়পত্র, ভোটার তালিকা এবং জন্ম নিবন্ধনসহ একাধিক কাজ একাধিক প্রতিষ্ঠান করছে। নির্বাচন কমিশনসহ যে মন্ত্রণালয় জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধ করে এবং আরও যেসব মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সবার মধ্যে সমন্বয় থাকতে হবে। শুধু ভোটার তালিকা নয়, এ ধরনের সব কাজ যাতে একক কোনো স্থান থেকে করা হয় সেটি দেখতে হবে। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কাজও করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION