1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন

সোনালি ট্রফিতে রাঙানো হেমন্তের সন্ধ্যা

  • Update Time : বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩৬ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

হতাশার গোলশূন্য ড্র। তারপরও মুজিববর্ষ ফিফা আন্তর্জাতিক প্রীতি সিরিজের ঝা চকচকে সোনালি ট্রফিটা জামাল ভূঁইয়াদের হাতেই উঠল। প্রথম ম্যাচে নেপালকে ২-০ গোলে হারানোর সুবাদে। দুই ম্যাচের প্রীতি ফুটবল সিরিজ ১-০-তে জিতেছে বাংলাদেশ। আতশবাজি পুড়ল ট্রফি জয়ে। সোনালি ট্রফিতে রাঙানো হেমন্তের সন্ধ্যায় খুলল ১৭ বছরের গেরো। এর আগে ২০০৩ সালে সর্বশেষ সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে ট্রফি জিতেছিল জাতীয় ফুটবল দল।

মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ পেয়েও নষ্ট করেন স্বাগতিক ফরোয়ার্ডরা। টিকিটের চেয়ে দর্শক উপস্থিতি দ্বিগুণ ছিল কালও। প্রথম ম্যাচের পর জাতীয় দলের ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে’র করোনা পজিটিভ হওয়ার খবরেও টনক নড়েনি দর্শকদের।দল বেঁধে প্রিয় দলকে উৎসাহিত করতে এসেছিলেন তারা। প্রেসবক্সেও একই চিত্র। কোথাও ছিল না স্বাস্থ্যবিধির বালাই।

দুইবার কোভিড-১৯ পরীক্ষায় পজিটিভ হয়েছেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে। তাই বাংলাদেশের ডাগ আউটে থাকতে পারেননি তিনি। কাজ চালিয়েছেন তারই স্বদেশি সহকারী কোচ স্টুয়ার্ট পল ওয়াটকিস। দ্বিতীয় মাচে একাদশে দুটি পরিবর্তন আনেন তিনি। ডিফেন্ডার রিয়াদুল হাসানের জায়গায় ইয়াসিন খান এবং গোলকিপার আনিসুর রহমান জিকোর জায়গায় নামানো হয়েছিল আশরাফুর ইসলাম রানাকে। দু’জনেই দক্ষতার সঙ্গে নিজেদের দায়িত্ব পালন করেছেন। অন্যদিকে নেপাল একাদশে ছয়টি পরিবর্তন ছিল। প্রথম ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছিলেন গোলকিপার কিরন কুমার লিম্বু। দ্বিতীয় ম্যাচে অধিনায়কত্বের আর্মব্যান্ড পরেন ভারত খাওয়াস।

প্রথম ম্যাচের মূল একাদশেই ছিলেন না তিনি। প্রথমার্ধে স্বাগতিকদের হতাশ করেন রনজিৎ ধীমাল। ম্যাচের আগে যাকে দলের অন্যতম শক্তি বলেছিলেন নেপালের কোচ বাল গোপাল মহারজন। প্রথম ম্যাচে খেলতে পারেননি। করোনা থেকে মুক্ত হয়ে দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নেমে রুখে দিয়েছেন বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি আক্রমণ। দলকে বাঁচিয়েছেন গোল হজমের হাত থেকে। পুরো ম্যাচে বেশ ক’বার নেপালের সীমানায় আক্রমণ শানিয়েও গোলের দেখা মেলেনি স্বাগতিক শিবিরে। ম্যাচের পাঁচ মিনিটে জামাল ভূঁইয়ার সেট পিস নেপালের বক্সের মধ্যে পড়লেও বলে পা লাগাতে পারেননি কেউ।

২৩ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে নেপালের বক্সের কাছাকাছি এসে জীবন পাস দেন সতীর্থ ফরোয়ার্ড সুমন রেজাকে। সুমনের শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। আক্ষেপে পোড়েন দর্শকরা। ৭৩ মিনিটে হুট করে মাঠে ঢুকে পড়েন অতি উৎসাহী এক দর্শক। অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়াকে জড়িয়ে ধরে মুঠোফোনে সেলফিবন্দি করেন। পরে অবশ্য নিরাপত্তা কর্মীরা তাকে ধরে নিয়ে যান। এটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে কতটা নাজুক ছিল নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বাংলাদেশ বেশিরভাগ আক্রমণ শানিয়েছে ডান প্রান্ত দিয়ে। আর আক্রমণের মধ্যমণি মোহাম্মদ সাদ উদ্দিন। নাবীব নেওয়াজ জীবনের সঙ্গে তার বোঝাপড়া ছিল দারুণ। প্রথম ম্যাচে জীবনের গোলের নেপথ্যে ছিলেন সাদ। ঢাকা আবাহনীতে একসঙ্গে খেলা দুই ফরোয়ার্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের জার্সিতে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলা সুমন রেজাও পায়ের ঝলক দেখিয়েছেন কয়েকবার।

জীবন, সাদ, সুমন- এই ত্রয়ীকে সামলাতে গিয়ে বারবার খেই হারিয়ে ফেলেন নেপালের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা। তবে ডিফেন্ডার ধীমাল ও গোলকিপার কিরন লিম্বু হতাশ করেছেন স্বাগতিকদের। ম্যাচের অন্তিম সময়ে নেপালের একটি আক্রমণ পোস্টে প্রতিহত হলে বেঁচে যায় স্বাগতিকরা। প্রীতি সিরিজ শেষে আগামীকাল কাতার যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। ৪ ডিসেম্বর দোহায় স্বাগতিকদের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ফিরতি ম্যাচ খেলবেন জামাল ভূঁইয়ারা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION