1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১১:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গোপালগঞ্জের প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন করলেন প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায়, ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৫ জয়পুরহাটে পাঁচবিবিতে শত্রুতার আগুন কৃষকের সবজি ক্ষেতে কুষ্টিয়ায় আন্তজেলা ডাকাত দলের মূল হোতাসহ আটক ৩ কলাপাড়ায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে অবৈধভাবে  ইটভাটা, ক্ষতির স্বীকার এলাকাবাসী। লালমনিহাটে গাঁজা সহ মাদক ব্যবসায়ী আজিজুলগ্রেফতার মাই ম্যান’ দিয়ে কমিটি করা চলবে না: কাদের যারা মূর্তি আর ভাস্কর্যকে এক করে দেখেন তারা ভুল করছেন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ হবে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধ বগুড়ায় গাড়ী চালকদের দুইদিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ কর্মশালা

আবারও বাসে আগুন কী স্বার্থে কার জন্য

  • Update Time : সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩৩ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

বিএনপি-জামায়াতের অতীতের অগ্নিসন্ত্রাসের রাজনীতির দিকে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, সম্প্রতি কয়েকটি বাসে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটানো হয়েছে। কেউ কোনোভাবেই যেন ধ্বংসাত্মক রাজনীতির পথে দেশকে নিতে না পারে সেজন্য দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা যখন চলছে তখন এলো ঘূর্ণিঝড়, তারপর এলো বন্যা। এর মধ্যে কোনো কথা নাই বার্তা নাই কয়েকটি বাসে আগুন দিয়ে অগ্নিসন্ত্রাস। কেন কী স্বার্থে, কার জন্য?’ রোববার জাতীয় সংসদে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কর্মময় ও বর্ণাঢ্য জীবনের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালি-বিধির ১৪৭-এর আওতায় ওই প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই। প্রস্তাবটি নিয়ে টানা ৫ দিন আলোচনা করেন সরকার ও বিরোধীদলীয় সদস্যরা। মোট ৭৯ জন সংসদ সদস্য ১৯ ঘণ্টা ৩ মিনিট আলোচনা করেন। সংসদ নেতার বক্তব্যের পর প্রস্তাবটি কণ্ঠভোটে দিলে তা সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নই তার সরকারের মূল লক্ষ্য। গণতন্ত্রকে সুসংহত করা, শোষিতের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করে দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো- এটাই ছিল জাতির পিতার স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নই আমাদের লক্ষ্য। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সেই চেষ্টাই করে যাচ্ছে।  এ সময় সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়ে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রীকে। প্রস্তাবটি পাসের সময় সংসদ ভবনে প্রেসিডেন্ট বক্সে উপস্থিত থেকে অধিবেশন প্রত্যক্ষ করছিলেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এর আগে ৯ নভেম্বর মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিশেষ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি স্মারক বক্তৃতা করেন। প্রস্তাবটি পাসের আগে ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর সংবিধান গ্রহণকালে সংসদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়া ভাষণটি শোনানো হয়।

প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার কর্মময় জীবন তুলে ধরে বলেন, স্বাধীনতা কিন্তু চট করে একদিনে আসেনি। দীর্ঘদিন তার সেই লালিত স্বপ্ন। সেটা তিনি নিজে বলেছেন। তিনি যখন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলে স্বাধীনতাবিরোধী চক্র ও দেশীয় আন্তর্জাতিক চক্র যখন তার যাত্রাপথে প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি করে, দুর্ভিক্ষ হল, এ দেশের মানুষকে হত্যা করা হল, রাতের আঁধারে গণপরিষদ সদস্য নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের হত্যা করা শুরু হল। এমনকি ঈদের নামাজে পর্যন্ত সংসদ সদস্যদের হত্যা করা হল। এরপর দ্বিতীয় বিপ্লবের কর্মসূচি ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। তার লক্ষ্য ছিল দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন।

দেশ ও জনগণের উন্নয়নে জাতির পিতার নেয়া সমবায় কার্যক্রমের বর্ণনা দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু প্রতিটি গ্রামে বাধ্যতামূলক সমবায় করতে চেয়েছিলেন। জমির মালিক হবে কৃষক। উন্নত সার-বীজ সরাসরি তাদের কাছে যাবে। যা থেকে তিনগুণ ফসল উৎপাদন হবে। কৃষকের ফসল কৃষকরাই ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করবে। এতে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে দেশ। সমবায় সংক্রান্ত বঙ্গবন্ধুর ওই উদ্যোগ সফল করতে পদক্ষেপ নিয়েছে বর্তমান সরকার। কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ-বাকশাল গঠনের কারণ ও প্রেক্ষাপট বর্ণনা করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, একটি বিপ্লবের পর অনেক কিছুই ঘটে। যাদের অর্থ আছে, লাঠি আছে, তারা সবকিছু দখলে নিতে চায়।

তাই যুদ্ধপরবর্তী সময়ে কেউ যাতে নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে না পারেন, সত্যিকারের গণতান্ত্রিক অধিকার যেন জনগণের কাছে পৌঁছায়, সেজন্য একটি সিস্টেম চালু করতে চেয়েছিলেন। কাজ শুরু করেছিলেন ।কিন্তু তিনি শেষ করতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জাতীয় নির্বাচনের পর যারাই ক্ষমতায় এসেছে, তারা প্রহসন করে নির্বাচনী ব্যবস্থা নষ্ট করে দিয়েছে। আমরা সিস্টেমটা পুনরুদ্ধার করেছি। করোনা সংকটে সরকারের পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষ একদিকে করোনা সামলাচ্ছে। অপরদিকে অর্থনীতির গতি যাতে সচল থাকে তার ব্যবস্থা নিয়েছি।

যেখানে যা দরকার আমরা দিয়ে মানুষের জীবনযাত্রা যাতে সচল থাকে সেই ব্যবস্থা নিচ্ছি। তিনি আরও বলেন, করোনার চিকিৎসার ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি। আজকে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হচ্ছে। টাকা-পয়সা দিয়ে ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন কেনার ব্যবস্থা আমরা রেখে দিয়েছি। যেন যখনই চালু হবে আমরা এটা নিতে পারি। সেই ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছি। যখন যা প্রয়োজন, আমরা তার ব্যবস্থা করে যাচ্ছি। শেখ হাসিনা বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে আমাদের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা কিছুটা ব্যাহত হয়েছে।

বিএনপিকে উদ্দেশ করে শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচনে নামমাত্র অংশগ্রহণ করে। টাকা-পয়সা যা পায়, পকেটে নিয়ে রেখে দেয়। ইলেকশনের দিন ইলেকশনও করে না। এজেন্টও দেয় না। কিছুই করে না। মাঝপথে ইলেকশন বয়কটের নাম দিয়ে বাসে আগুন দিয়ে পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়। এটার উদ্দেশ্যটা কী? সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা অনেকগুলো কাজ করেছি। দারিদ্র্যের হার কমাতে পেরেছি। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশ এখন আর ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে চলে না। নিজেদের অর্থে বাজেট দিতে পারছি। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের চ্যালেঞ্জ আমরা গ্রহণ করেছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি। বিজ্ঞান-প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন জাতি গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিয়েছি। চিকিৎসাসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি।

জাতির পিতাকে হত্যা না করা হলে দেশ অনেক আগেই উন্নত হতো উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার আসতে পেরেছিল বলেই, আমরা যতটুকু সম্ভব উন্নতি করেছি। এর বাইরে যারা ক্ষমতায় ছিল তারা তো দেশের উন্নতি করেনি মানুষের উন্নতি করেনি। করার ইচ্ছাও ছিল না। আমরা যখনই সরকারে এসেছি, জনগণের উন্নয়নের চেষ্টা করেছি। তিনি আরও বলেন, আমরা জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করছি। আগামী বছর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করব। সুবর্ণজয়ন্তীর সেই অনুষ্ঠান সফল করার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

কোস্টগার্ডকে আধুনিক বাহিনীতে রূপ দেব- প্রধানমন্ত্রী : বাসস জানায়, এদিকে রোববার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবন থেকে চট্টগ্রামের কোস্টগার্ড বার্থ পতেঙ্গায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের দুটি অফশোর প্যাট্রল ভেসল, পাঁচটি ইনশোর প্যাট্রল ভেসল, দুটি ফাস্ট প্যাট্রল বোট এবং কোস্টগার্ড বেজ-ভোলার কমিশনিং করা হয়। তিনি বলেন, সমুদ্রসম্পদ রক্ষা, সমুদ্রবন্দরের নিরাপত্তা, চোরাচালান বন্ধসহ উপকূলীয় জনগণের জানমাল রক্ষায় কোস্টগার্ডের ভূমিকা উত্তরোত্তর বাড়ছে। নতুন নতুন দায়িত্ব পালনে আমরা কোস্টগার্ডকে একটি আধুনিক ও যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষে কোস্টগার্ডের বহরে এ নৌযানগুলো যুক্ত হওয়ায় সংস্থাটিতে নতুন এক অধ্যায়ের সূচনা হল। কারণ উপকূলীয় অঞ্চল টহলে রাখাটা আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কোস্টগার্ডের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিগত প্রায় ১২ বছরে কোস্টগার্ডের জন্য বিভিন্ন আকারের ৫৫টি জাহাজ ও জলযান নির্মাণ করা হয়েছে। তিনটি প্রকল্পের আওতায় কোস্টগার্ডের বেজসমূহের কর্মকর্তা ও নাবিকদের বাসস্থান, অফিসার্স মেস, নাবিক নিবাস ও প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। পাশাপাশি পটুয়াখালী অঞ্চলে নিজস্ব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘বিসিজি বেজ অগ্রযাত্রার’ মাধ্যমে কোস্টগার্ডের জনবলের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। কোস্টগার্ড সদস্যদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশপ্রেম, সততা ও ইমানের সঙ্গে আপনারা দায়িত্ব পালন করবেন, বাহিনীর সুনাম যেন সব সময় বজায় থাকে সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেবেন। এই বাহিনীর ধারাবাহিক অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে এবং আপনাদের সার্বিক কল্যাণে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তা সরকার দিয়ে যাবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৯৬-পরবর্তী আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে খুলনা শিপইয়ার্ড এবং নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডকে নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে দিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্তের ফলে আজ দেশেই বিশ্বমানের জাহাজ নির্মাণ হচ্ছে। শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৪ সালে আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকলেও জাতীয় সংসদে আমাদের আনীত বিলের কারণেই ‘কোস্টগার্ড’ একটি বাহিনী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।  শেখ হাসিনা বলেন, ‘ব্লু ইকোনমি’ ও গভীর সমুদ্রে নিরাপত্তা প্রদানের জন্য এ বাহিনীর রূপকল্প-২০৩০ ও ২০৪১ অনুযায়ী বর্তমান জনবল ৪ হাজার ৭৮১ জন থেকে বাড়িয়ে ১৫ হাজার করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে কোস্টগার্ডের একটি সুসজ্জিত চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করে। বাহিনীর মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল মো. আশরাফুল হক অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা দেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে অধিনায়কদের হাতে ‘কমিশনিং ফরমান’ হস্তান্তর করেন। নব্য কমিশনিং করা ৯টি জাহাজের ওপর অনুষ্ঠানে একটি ভিডিওচিত্রও পরিবেশিত হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION