1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১০:৩৮ অপরাহ্ন

পিতায় মিথ্যা স্বাক্ষী না দেয়ায় প্রতিবন্ধী ছেলে আইসিটি মামলায় আসামি

  • Update Time : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫১ জন পঠিত

বরিশাল থেকে এস এম ওমর আলী সানী,

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের কমলাপুর গ্রামের পিতা মিথ্যা স্বাক্ষী না দেয়ায় হাবা-গোবা প্রতিবন্ধী ছেলেকে আইসিটি মামলায় আসামি করে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার গৌরনদী রিপোটার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন প্রতিবন্ধী কিশোরের বাবা আবু আবদুল্লাহ। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক তথ্য উদঘাটন করে প্রতিবন্ধী ছেলেকে মামলা থেকে অব্যহতি দেয়ার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের আহবান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে প্রতিবন্ধী ফয়সাল আহম্মেদের পিতা আবু আবদুল্লাহ। লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলে ফয়সাল আহম্মেদ একজন শারীরিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। সে হাবা-গোবা, সহজ-সরল কিশোর। উপজেলার কমলাপুর গ্রামের এক নারী তাকে একটি পর্নোগ্রাফির মামলায় আসামি করেছে। প্রতিবন্ধী ছেলের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার বাদি এজাহারে বলেন, ফয়সাল আহম্মেদের ইমু আইডি থেকে তার অশ্লীল ভিডিও তিনটি ইমু আইডিতে ছড়ানো হয়েছে। এ অভিযোগ সত্য নয়, প্রকৃত সত্য হয়েছে আমার শারীরিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলে ফয়সালকে প্রতিবেশী নারী (মামলার বাদি) বিভিন্ন সময় তার বাড়িতে ডেকে নিত। কোন এক সময় মামলার বাদি ছেলে ফয়সাল আহম্মেদের ছবি তুলে নারী নিজের সিম দিয়ে ইমু আইডি খুলে ওই আইডি থেকে নিজেই তার অশ্লীল ভিডিও সজীব ওয়াজেদ জয়, তন্বী আক্তার ও জেসিকা শবনম নামে তিনটি ইমু আইডিতে ছড়িয়ে দেয়। ওই নারীর জমাজমি সংক্রান্ত একটি মামলায় আমাকে মিথ্যা স্বাক্ষী দিতে অনুরোধ জানায় আমি মিথ্যা স্বাক্ষী না দেয়ায় আমাকে জব্দ ও পরিবারকে হয়রানী করতে ষরযন্ত্রমূলকভাবে আমার প্রতিবন্ধী ছেলেকে পর্নোগ্রাফি (আইসিটি) মামলায় আসামি করেছে।

তিনি আরো বলেন, যে মোবাইল সিম দিয়ে (০১৪০৭৫২২৭৫৯) আমার ছেলে ফয়সালের ছবি ব্যবহার করে ইমু আইডি খোলা হয়েছে ওই সিম আমার ছেলে কিংবা আমার পরিবারের কারোর নয়। আইন শৃংখলা বাহিনী ও তদন্তকারী কর্মকর্তারা তদন্ত করলেই ওই সিমের মালিকের পরিচয় ও অশ্লীল ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার সত্যিকারের দোসী ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে পারবে। প্রকৃত পক্ষে আমার পরিবারেক হয়রানী করতে আমার প্রতিবন্ধী ছেলেকে আসামি করা হয়েছে। ওই নারী (আইসিটি মামলার বাদি) জনৈক ফারুক হোসেনের সঙ্গে তার ইমু আইডিতে ভিডিও কলে কথা এবং অশ্লীল ছবি ও ভিডিও সেইভ করে তা প্রচার করে । সচেতন সমাজের প্রশ্ন ফারুক হোসেন ও মামলার বাদি ওই নারীর ভিডিও কলের অশ্লীল ছবি ও ভিডিও তাদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যপার তা কি করে অন্য আইডিতে গেল। প্রতিবন্ধী পুত্রের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের প্রতি তদন্তপূর্বক প্রকৃত সত্য উদঘাটনের জন্য আমি দাবি জানাচ্ছি। আমার প্রতিবন্ধী নির্দোশ ছেলেকে মামলা থেকে অব্যহতি দেয়ার আবেদন জানাচ্ছি।

আইসিটি মামলার বাদি একজন প্রতারক ও মামলা বাজ। এলাকার মানুষকে মামলা দিয়ে হয়রানী ও লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া তার পেশা ও নেশা। ওই নারী ২০০৮ সালে কুষ্ঠিয়ার সুজন নামে এক ছেলেকে বিয়ে করে। ওই ঘরে ২০১১ সালে একটি পুত্র সন্তান জন্ম গ্রহন করে। ছেলের বয়স ৯বছর। প্রথম স্বামী থাকা অবস্থায় এক হিন্দু পরিবারের পুলিশ সদস্যর সঙ্গে পরকীয় জড়িয়ে পরে। তখন স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া ঝাটরি পরে মামলা করে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে প্রথম স্বামীকে তালাক দেন। ২০১৬ সালে কালকিনির বিজয় মাঝি নামে এক পুলিশ সদস্যর সঙ্গে প্রেম করে তাকে বিয়ে নামক ফাঁদে ফেলেন। পরবর্তিতে দ্বিতীয় স্বামী হিন্দু পরিবারের সন্তান বিজয় মাঝির কাছে কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করে। না দেয়ায় বিজয়ের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করে ওই নারী। বর্তমানে বরিশাল সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেড আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এরই মধ্যে উজিরপুরের গুঠিয়ার রুহুল আমিন নামে এক যুবকের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে করে অর্থ হাতিয়ে নেন। শুধু তাই নয় সম্প্রতি সময়ে প্রবাসী ফারুক হোসেন নামে এক যুবকের সঙ্গে ওই নারীর ফেইসবুকে পরিচয় হয়।

পরিচয়ের সূত্র ধরে কার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ওই ফারুক হোসেনের সঙ্গে ওই নারীর ইমু আইডতে বিয়ে হয়। উভয়ের সঙ্গে ইমু আইডির ভিডিও কলে নারীর শরীর ও গোপন অঙ্গ প্রদশনের ভিডিও করে তারা নিজেরাই। যেই ভিডিও তিনটি ইমু আইডিতে প্রকাশ করে ৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। ওই নারী ও তার কথিত ৪র্থ স্বামীর মধ্যে ভিডিও কলে ভিডিও চিত্র কিভাবে বাহিরে প্রকাশ পেল? কেনই বা তা প্রকাশ করল? প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে ওই নারী নিজের ভিডিও উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রচার করেছে। সে আমার ছেলের ছবি ব্যবহার করে নিজের সিমকার্ট দিয়ে ইমু আইডি খুলে ওই আইডি থেকে তিনটি ফেইক আইডির মাধ্যমে বাহিরে ভিডিও ছড়িয়ে দেয়। অর্থ হাতিয়ে নেয়ার ধান্ধায় আমার প্রতিবন্ধী ছেলে, ভ্যান চালকসহ নিরীহ এরকাধিক ব্যক্তিকে আসামি করেছে। সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত সত্য উদঘাটন করে নিরীহ হাবা-গোবা ও সহজ সরল প্রতিবন্ধী ছেলে ফয়সালকে মামলা থেকে অব্যহতি দেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গৌরনদী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নির্বাহী সদস্য আব্দুল জলিল ফকির, খাঞ্জাপুর ইউনিযন আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো.হানিফ হাওলাদার, মুক্তিযোদ্ধা মো.জাহাঙ্গীর ঘরামী, খাঞ্জাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য বাদির মামা হাফিজুর রহমান হাবুল, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর ফকির, পশ্চিম খাঞ্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রিয়াজ হোসেন, ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের নেতা আব্দুল হক তালুকদার, যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION