1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৩৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সাবেক মন্ত্রী সুনীল গুপ্তের স্মৃতি সংসদ আগৈলঝাড়ায় শারী ও লুঙ্গি বিতরণ করে আগৈলঝাড়ায় আ’লীগ নেতাকে লাঞ্ছিত করায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া “ আহত ৩ জন বরিশালের বাবুগঞ্জে ধর্ষিতা নারীর পুত্র সন্তান প্রসব পাঁচবিবি তুলশীগঙ্গা নদী  পূনঃখনন কাজের উদ্বোধন ডিআইজি হাবিবুর রহমানের শারদীয় শুভেচ্ছা উপহার পেল কেন্দ্রীয় কালীবাড়ি সহ বিভিন্ন পূজা মন্ডপ শীঘ্রই শুরু হচ্ছে বাঙালী নদীর খনন প্রকল্পের কাজ আইনজীবী রফিক-উল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক গোপালগঞ্জে প্রথম করোনা পরীক্ষার আরটিপিসিআর ল্যাবের উদ্বোধন বরিশালে ভারী বর্ষনে নিন্মাঞ্চল প্লাবিত বরিশালে অভ্যন্তরীন নৌ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

আমাদের ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহার করতে হবে, প্রধানমন্ত্রীর

  • Update Time : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮১ জন পঠিত

বাংলাদেশ খবর ডেস্ক,

দেশের মানুষের কাছে সুপেয় পানি পৌঁছে দিতে ভূগর্ভস্থ পানির ওপর চাপ কমিয়ে মাটির ওপরের পানির ব্যবহার বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহার করতে হবে। সেচের পানি বা ব্যবহারের পানির জন্য ভূগর্ভস্থ পানির পরিবর্তে আমরা যেন ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহার করতে পারি, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।’

বৃহস্পতিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।অনুষ্ঠানে গ্রিন রোডে নবনির্মিত পানি ভবন, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘ম্যুরাল’ এবং বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের নবনির্মিত প্রধান কার্যালয় ‘পর্যটন ভবন’ এবং সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সম্প্রসারণ (প্রথম পর্যায়) প্রকল্পের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। দেশে যেন পানির সমস্যা না হয়, সে জন্য সরকারের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, পানির জন্য এক সময় হাহাকার ছিল, সেই হাহাকারটা বন্ধ করাই আমাদের লক্ষ্য। পাশাপাশি সারা বাংলাদেশে যত খাল, বিল, হাওর, পুকুর, নদী আছে-সব কটিতে যাতে নাব্যতা থাকে-সেগুলো খনন করে পানির ধারণক্ষমতা বাড়ানো। তাতে দুটি কাজ হবে। একটি হচ্ছে আমাদের জীববৈচিত্র্য রক্ষা হবে, প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা হবে, আবার মৎস্য উৎপাদন বাড়বে।’

গবেষণার গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এটা সব সময় বিশ্বাস করি যে, গবেষণা ছাড়া কোনো কাজেই উৎকর্ষ সম্ভব না। দুর্ভাগ্যের বিষয় হল, ১৯৯৬ সালে যখন সরকার গঠন করি, তখন দেখেছিলাম আমাদের গবেষণায় কোনো বিশেষ বরাদ্দই রাখা হতো না, সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ ছিল না এবং কোনো প্রণোদনা দেয়া হতো না।’ ২৬১ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২ তলাবিশিষ্ট নবনির্মিত পানি ভবন-এর উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই ভবনের যখন নামকরণ করি তখন বলেছিলাম পানি ভবনে যেন পানি থাকে। জলাধার থাকে এবং মূল পরিকল্পনা ও নকশাটি সেভাবেই করা হয়েছে।’

অনুষ্ঠানের গণভবন প্রান্তে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পানি ভবন মিলনায়তন প্রান্ত থেকে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব কবির বিন আনোয়ারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যুক্ত হন। এ ছাড়া ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান এবং পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী একেএম এনামুল করিম শামীমও পানি ভবন থেকে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

আর সিলেট ওসমামী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর প্রান্তে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান, বেসামরিক বিমান পরিহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মহিবুল হক, ওসমানী বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস পুরো অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন। প্রাচ্যের সঙ্গে পাশ্চাত্যের সংযোগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটা আদর্শ জায়গা হতে পারে : ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নতুন টার্মিনাল এবং ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আরও কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থানটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রাচ্যের সঙ্গে পাশ্চাত্যের সংযোগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সব থেকে একটা আদর্শ জায়গা হতে পারে, যদি আমরা একে সেভাবে উন্নত করতে পারি।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক এয়ার রুটের মধ্যে থাকায় আমাদের সে সম্ভাবনাটা রয়েছে। যদি আমরা সেটা কাজে লাগাতে পারি, তাহলে এয়ারলাইন্সই আমাদের অনেক টাকা উপার্জন করে দিতে পারে। শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি ধন্যবাদ জানাই আমাদের এয়ারলাইন্সকে। কারণ, আজ দেখলাম যে, আমেরিকার সঙ্গে একটা চুক্তি হয়েছে, যেখানে আমাদের বিমান যেতে পারবে।’ বাংলাদেশ বিমানের আধুনিকায়নে আমেরিকার বোয়িং কোম্পানির সঙ্গে চুক্তির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর এ পর্যন্ত অত্যাধুনিক ১৩টি বিমান আমাদের বিমানবহরে যুক্ত হয়েছে। আমরা যখন বোয়িং বিমানগুলো কিনি তখন থেকেই এটা একটা প্রচেষ্টা ছিল-যাতে আমেরিকায় আমাদের বিমান নিতে পারি। কারণ, সেখানে আমাদের অনেক বাঙালি বসবাস করেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যেখানে বাঙালিরা থাকেন, সেখানে ঢাকা থেকে সরাসরি যেন আমাদের বিমান পাঠাতে পারি। ঢাকা থেকে টরেন্টো, নিউইয়র্ক ও টোকিওসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে যাতে আমরা যেতে পারি, সে জন্য কিছু বিমানও আমরা ক্রয় করেছি। কাজেই সবার সঙ্গে একটা সমঝোতা করে এই শিল্পটাকে আমাদের আরও উন্নত করতে হবে। সে জন্যই আমরা বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, প্রথমবার ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকাকালে তার সরকার চট্টগ্রামে বিমানবন্দর তৈরি করে সেটিকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করে। সেইসঙ্গে সিলেট বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের করাসহ ঢাকার বিমানবন্দরে বোর্ডিং ব্রিজ থেকে শুরু করে কার পার্কিং নির্মাণ করে। ’৯৬ সালে বিমানবন্দরে কোনো বোর্ডিং ব্রিজ ছিল না। সে সময় বিমানে হেঁটে গিয়ে চড়তে হতো। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আঞ্চলিক বিমানবন্দর হিসেবে গড়ে তোলা এবং সিলেট, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আরও উন্নত করার প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে; যাতে নেপাল, ভুটান এবং ভারতসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো ব্যবহার করতে পারে। পাশাপাশি পর্যটনের একটা বিশাল সম্ভাবনা উন্মুক্ত হয়।’

এভাবেই নৌ, সড়ক, রেল এবং আকাশপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যোগাযোগ ব্যবস্থা যত সহজ হবে, দেশের অর্থনীতি তত গতিশীলতা পাবে-উন্নত হবে। পাশাপাশি মানুষের যাতায়াতও সহজ হবে।’
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছিলাম বলেই আজ করোনার মধ্যেও সরকার গতিশীল রয়েছে এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করতে এবং সেগুলো জনগণের জন্য উন্মুক্ত করতে পারছি।’ এ সময় তিনি নির্মিত এবং নির্মাণাধীন স্থাপনাগুলো যথাযথভাবে সংরক্ষণের পরামর্শ দেন।

জীববৈচিত্র্য সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর চার প্রস্তাব : বিনিয়োগের সময় ‘টেকসই ভবিষ্যৎ’ নিশ্চিতের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, এই পৃথিবী এবং মানুষকে রক্ষার জন্য বিনিয়োগের সময় আমাদের টেকসই ভবিষ্যতের প্রতি মনযোগী হতে হবে।
বুধবার (বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সকালে) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনের সাইডলাইনে ভার্চুয়াল জীববৈচিত্র্য সম্মেলনে দেয়া বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন। বিবৃতিতে তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে পৃথিবীকে রক্ষায় চার দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন। ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য জীববৈচিত্র্য রক্ষায় জরুরি পদক্ষেপ’ শীর্ষক এই ইভেন্টে প্রধানমন্ত্রী তার প্রথম প্রস্তাবে বলেন, যে কোনো বিনিয়োগের সময় খেয়াল রাখতে হবে, সেটা ভবিষ্যতের জন্য কতটা টেকসই হবে।

দ্বিতীয় প্রস্তাবে বলেন, জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্য শিক্ষাব্যবস্থা ও গবেষণার মাধ্যমে বৃহত্তর জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে এবং আইন ও নজরদারি ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে হবে। তৃতীয় প্রস্তাবে বলেন, জেনেটিক গবেষণার তথ্য এবং এ সংক্রান্ত প্রথাগত জ্ঞান থেকে প্রাপ্ত সুফল যাতে প্রকৃত স্বত্বাধিকারীরা পান, তা অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। চতুর্থ প্রস্তাবে বলেন, প্যারিস জলবায়ু সম্মেলনে যেসব লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল, সেগুলোর বাস্তবায়নের ওপর নির্ভর করবে আমরা বিলুপ্ত হয়ে যাব, না টিকে থাকব। সুতরাং অবশ্যই আমাদের সেসব অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে হবে।
বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, টেকসই উন্নয়নের জন্য জীববৈচিত্র্য রক্ষায় জরুরি পদক্ষেপের ব্যাপারে বাংলাদেশ সম্পূর্ণরূপে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কারণ, আমরা একটি আন্তঃনির্ভরশীল বিশ্বে বাস করি। যেখানে পৃথিবী গ্রহের প্রতিটি প্রজাতি আমাদের বাস্তুসংস্থানে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION