1. bkhabor24@gmail.com : Molla Mohiuddin : Molla Mohiuddin
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০২:০২ পূর্বাহ্ন

মুকসুদপুরে শিক্ষক ও দপ্তরী নিয়োগে লাখ লাখ টাকা বানিজ্য

  • Update Time : রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৫০ জন পঠিত

মুকসুদপুর থেকে ফকির মিরাজ আলী শেখ,

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের ননীক্ষীর ইউনিয়নের এস এম মডেল (সূযমুর্খী) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সদস্যদের অভ্যান্তরীন কোন্দলে বেরিয়ে এসেছে স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিয়োগে ১০ লক্ষ টাকা বানিজ্যসহ তিনজন সহকারী শিক্ষক ও স্কুলের দপ্তরী নিয়োগে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার গল্প । স্কুলের রেজ্যুলেশন ও প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির বাড়ী থেকে চুরি করে নিয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকসহ তিন সহকারী শিক্ষকের কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবী করেছে স্কুলের কেরানী দীপক বাড়ৈ ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কানাই বাড়ৈ এমন অভিযোগ করেছেন ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রনজিৎ বাড়ৈ ও স্কুলের প্রধান শিক্ষক নকুল বিশ্বাস।
অন্যদিকে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের ননীক্ষীর ইউনিয়নের এস এম মডেল (সূর্যমুখি) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কানাই বাড়ৈ অভিযোগ করে বলেছেন- স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিয়োগে ১০ লাখ টাকা বানিজ্যসহ তিনজন সহকারী শিক্ষক নিউটন সরকার, অরুন মৌলিক, গৌরী রায় ও স্কুলের দপ্তরী কোমল বিশ্বাসের নিয়োগে শিক্ষা অফিসকে ম্যানেজ করে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রনজিৎ বাড়ৈ লাখ লাখ টাকা বানিজ্য করেছে। তিনি বলেন স্কুলের শুরু ২০০৫ সাল থেকে বাদল গোস্বামী ও হরিশ চন্দ্র বারুরী ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন । ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে পরে নকুল চন্দ্র বিশ্বাসকে প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয়। এছাড়া টাকা দিতে না পারায় স্কুলটি এমপিও ভুক্তির আগে ১৪ বছর ধরে এই স্কুলের দপ্তরীর কাজ করা সজল বৈদ্যকেও বাদ দিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। সেখানে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে দপ্তরী হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয় কোমল বিশ্বাস কে। ম্যানেজিং কমিটির অন্যন্য সদস্যরাও জানান- নিয়োগসহ স্কুলের কোন গুরুত্বপূর্ন কাজের কথা তাদের জানানো হয়না। এই স্কুলের নানান অনিয়ম ও দুর্নীর কথা তুলে ধরেন এলাকাবাসীও।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্কুলের নিয়োগ বানিজ্যর টাকার ভাগাভাগি নিয়ে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও সভাপতির মধ্যে দ্বন্দের সৃষ্টি হওয়ার কারনে এই নিয়োগ বানিজ্যের কথা বেরিয়ে এসেছে। এছাড়া যোগ্য লোকদের ম্যানেজিং কমিটিতে রাখা হয়না কারন যোগ্য ব্যক্তিরা কমিটিতে থাকলে সেখানে কোন দুর্নিতি তারা করতে পারবেন না। এই বিষয়ে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নকুল চন্দ্র বিশ্বাসের কাছে জানতে চাইলে টাকা দিয়ে চাকরী নেওয়ার কথা অস্বিকার করে বলেন শুরু থেকেই তিনি এই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসাবে ছিলেন কিন্তু ইংরেজীতে পারদর্শী না হওয়ায় ২০০৫ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ভলেন্টিয়ার হিসাবে বাদল গোস্বামী ও হরিশ চন্দ্র বারুরী প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন কিন্তু স্কুলের শুরু থেকেই তার প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ ছিলো । এছাড়া তিনি অভিযোগ করে বলেন স্কুলের কেরানী দীপক বাড়ৈ ও সদস্য কানাই বাড়ৈ সহ অভিযুক্ত তিন সহকারী শিক্ষক ও দপ্তরীর কাছে নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে ৫ লাখ টাকা দাবী করেছেন এবং জোর করে একটি স্ট্যাম্পও নিয়েছেন তারা । টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানানোর কারনে তাদের এই অভিযোগ ।
নিয়োগ বানিজ্যের কথা অস্বিাকার করে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রনজিৎ বাড়ৈ জানান এই পর্যন্ত তিনি স্কুলের পিছনে এক কোটি টাকার ও বেশি খরচ করেছেন কিন্তু কোন শিক্ষকের কাছ থেকে কোন টাকা পয়সা নেননি। বরং তার নিজ ঘর থেকে স্কুলের রেজ্যুলেশন খাতাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন কাগজপত্র স্কুলের কেরানী দীপক বাড়ৈ চুরি করে সেটা ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কানাই বাড়ৈয়ের কাছে দিয়ে সেগুলোকে পুজি করে এখন প্রধান শিক্ষক ও তিন সহকারী শিক্ষক এবং দপ্তরীরসহ তার কাছে ৫ লাখ টাকা দাবী করছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দীপক বাড়ৈ ও কানাই বাড়ৈ একটি স্টাম্পও নিয়েছেন ।
নিয়োগ বানিজ্যের এই বিষয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খাইরুল আনাম মোঃ আবতাবুর রহমান হেলালির কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন-
শিক্ষা অফিসের জড়িত থাকাসহ নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে বানিজ্যের কথা তিনি জানতেন না ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন বিষয়টি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেলে অবশ্যই আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়া হবে তাদের বিরুদ্ধে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION