1. bkhabor24@gmail.com : Md Abu Naim : Md Abu Naim
  2. jmitsolution24@gmail.com : support :
বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১০:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বগুড়ায় মৎস্যজীবী লীগের বিশেষ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত উজিরপুরে ভোটকেন্দ্র স্থানান্তর নিয়ে চরম উত্তেজনা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা বিরামপুর ১১ মাস পর বেতন-ভাতা  পেল পৌরসভার কর্মকর্তা- কর্মচারীগণ পাঁচবিবিতে সড়ক দূর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু পাঁচবিবিতে কবি ও শিল্পীদের মিলন মেলা গোপালগঞ্জে প্রশিক্ষিত নারীদেরকে আত্ম-কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নগদ অর্থ সহ বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ কুষ্টিয়ায় কারারক্ষীর বদলে ছাগল, পুরুষ ওয়ার্ডে গরু কোটালীপাড়ায় ৯ম সুকান্ত মেলা উদ্বোধণ করলেন জেলা প্রশাসক বিশ্বসেরা তিন পেসারের একজন হতে পারেন মোস্তাফিজ যুবরাজের বিশেষ বাহিনী বিলুপ্ত করতে সৌদিকে চাপ যুক্তরাষ্ট্রের

দীর্ঘদিনেও দখলের ঘটনার অবসান ঘটেনি গাইবান্ধার পুরাতন জেলখানার জমির

  • Update Time : সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৮৭ জন পঠিত

গাইবান্ধা থেকে ওবাইদুল ইসলাম,

গাইবান্ধা জেলা শহরের ডিবি রোডের কাচারি বাজারে দীর্ঘদিন থেকেই পুরাতন জেলখানা ও পুরাতন জজ কোর্ট সীমানায় মাহাবুবুল আলম ও নিজাম উদ্দিনের লিজ নেওয়া দোকানের পিছনের জায়গা দখল ঘটনার অবসান ঘটেনি। অভিযোগ আছে, নিজাম উদ্দিনের লিজকৃত গণপূর্ত বিভাগের দোকানের জায়গাটির পিছনের অংশ দীর্ঘদিন থেকেই দখল করে রেখেছেন মাহাবুবুল আলম। অনতিবিলম্বে জায়গাটির সুরাহা হওয়া দরকার বলে মনে করেন সচেতন মহল।
যখন গাইবান্ধার প্রধান সড়ক ডিবি রোডটি জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনির নেতৃত্বে ফোর লেনের জন্য ভূমি অধিগ্রহনসহ সকল বাঁধা কাটিয়ে কাজের গতি বাড়ানো হচ্ছে ঠিক সেই সময় পুরাতন জজ কোর্টের সরকারি জায়গাসমূহ দখল করে ভোগের উৎসব চলছে জজ কোর্টের কিছু অসাধু কর্মকর্তার নীরবতার কারণে।
গাইবান্ধার ডিবি রোডে গুরুত্বপূর্ণস্থান পুরাতন জেলখানা। বর্তমান বিয়াম ল্যাবরেটরী স্কুলটি জেলখানার জায়গায় নির্মিত হয়েছে। এই স্কুল সংলগ্ন শান্ত কনফেকশনারীর পিছনের জায়গাটিও দখলদার মাহাবুবুল আলমের হাত থেকে রক্ষা পায়নি।
গণপূর্ত বিভাগের জায়গা পুরাতন জেল বিল্ডিং (বর্তমানে বিয়াম ল্যাবরেটরী স্কুল) ও মুনসেফ কোর্ট (বর্তমান পুরাতন জজ কোর্ট) এর মাঝে পানি নিস্কাশন ড্রেন অবস্থিত। যে ড্রেনটি গণপূর্ত বিভাগের জায়গা ও জজ কোর্টের জায়গার সীমানা নির্ধারন হিসেবে স্থাপন করা হয়েছিলো। গণপূর্ত বিভাগের জায়গায় অবস্থিত নিজাম উদ্দিনের লিজ নেয়া দোকানের পিছনের জায়গা শান্ত কনফেকশনারীর পাশের্ মাহাবুবুল আলমের একটি মারিয়া বেকারী নামে কনফেকশনারী আছে। যা জজ কোর্ট থেকে লিজ নেওয়া বলে মাহাবুবুল আলমের দাবী। আর রেজিয়া বেগমের দাবী তার স্বামী নিজাম উদ্দিন ১৯৮১ সালে তৎকালিন (বিল্ডিং ডিভিশন রংপুর) বর্তমানে গণপূর্ত বিভাগ থেকে ৬ ফিট বাই ১০ ফিট জায়গা দোকানের জন্য লিজ নেন। যা পুরাতন জেল বিল্ডিং ও জজ কোর্টের মাঝে পানি নিস্কাশন ড্রেনের উপর অবস্থিত।
এ বিষয়ে গাইবান্ধা গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, ১৯৮১ সালে তৎকালিন বিল্ডিং ডিভিশন রংপুর নিজাম উদ্দিনকে যে দোকান ঘর লিজ দিয়েছিলো তা আমাদেরই দেওয়া। বর্তমানে গণপূর্ত বিভাগ পুরাতন জেল বিল্ডিংটি বিয়াম ল্যাবরেটরী স্কুলকে দেওয়া হয়েছে। যা জেলা প্রশাসক তত্ত্বাবধান করছেন। এখন এ ব্যাপারে যদি কোন সিদ্ধান্ত দেন তো জেলা প্রশাসকই দিবেন।
রেজিয়া বেগম অভিযোগ করে বলেন, ১৯৮১ সালে আমার স্বামী নিজাম উদ্দিন তৎকালিন (বিল্ডিং ডিভিশন রংপুর) বর্তমানে গণপূর্ত বিভাগ থেকে ৬ ফিট বাই ১০ ফিট জায়গা দোকানের জন্য লিজ নেন। যা পুরাতন জেল বিল্ডিং ও পুরাতন জজ কোর্টের মাঝে পানি নিস্কাশন ড্রেনের উপর অবস্থিত। বর্তমানে বিয়াম ল্যাবরেটরী স্কুল এলাকায় অবস্থিত শান্ত কনফেকশনারীর পাশের্ মাহাবুবুল আলমের একটি মারিয়া বেকারী নামে কনফেকশনারী আছে। যা জজ কোর্ট থেকে লিজ নেওয়া আছে বলে তিনি দাবি করেন। দীর্ঘদিন থেকেই মাহাবুবুল আলম আমার স্বামীর লিজকৃত গণপূর্ত বিভাগের দোকানের জায়গাটির পিছনের অংশ দখলের পায়তারা করে আসছেন এবং দখল করে খাচ্ছেন।
বর্তমানে গাইবান্ধা শহরের প্রধান সড়কটি ডিবি রোড ফোর লেন করার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলে আমার স্বামীর দোকানের পিছনের ফাঁকা জায়গাটি মাহাবুবুল আলম দখলে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠেন। পিছনের জায়গায় মাহাবুবুল আলমের একটা দরজা করে চালি দিয়ে সেখানে তিনি দখলের কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন।
প্রতিদিন তিনি তার দাঙ্গাবাজ ভাই-ভাতিজা ও সন্ত্রাসী মিলে সেখানে মহড়া দিতে থাকেন। আমার রড় ছেলে নায়েব নাজীরকে এসব ঘটনা বললে তিনি ২০১৯ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি তার অফিসে সকালে দেখা করতে বলেন। আমার ছেলে জাভেদ যথারিতি তার অফিসে গেলে তখন তিনি বলেন, আমি মাহাবুবুল আলমকেও ডেকেছি উনি আসলে আপনাদের দুজনের সাথে কথা বলবো, আপনি অপেক্ষা করেন। কিছুক্ষণ পরে আমাদের ভারাটিয়ার মাধ্যমে আমার ছেলে জানতে পান যে, মাহাবুবুল আলম আমাদের দোকানের পিছনের অংশ প্রাচীর দিয়ে দখল করে নিচ্ছেন।
এমন খবর শুনে আমার ছেলে নায়েব নাজীরকে বললে, নায়েব নাজীরের নিরবতায় আমার ছেলে অনেক কিছু বুঝতে পান। তখন আমার ছেলে কোন উপায়ই না পেয়ে গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) বিষয়টি জানান এবং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তারপর সেখানে পুলিশ গিয়ে কাজ থামানের কথা বললেও মাহাবুবুল আলম তা অমান্য করে দখল নেওয়ার কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন। এমন সময় আমার ছোট ছেলে জিহাদ সেখানে গেলে মাহাবুবুল আলমের দাঙ্গাবাজ সন্ত্রাসীরা মিলে তাকে আক্রমণ করে গুরুতর আহত করেন।
এ ব্যাপারে গাইবান্ধা সদর থানায় জিহাদের স্ত্রী ববি বেগম বাদি হয়ে ২০১৯ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি একটি মামলা দায়ের করেন। যা বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে গাইবান্ধা পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) তদন্ত করছে।
এ ব্যাপারে নায়েব নাজীর সুমনের মুঠোফোনে বারবার ফোন করলেও কোন সারা মেলেনি। অপরদিকে বর্তমান নায়েব নাজীর বলেন, আমি পুরো ব্যাপারটি জানি এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আগের নাজীর এই জায়গা নিয়ে অনেক অনিয়ম করেছেন। আমি বিয়াম স্কুলের অধ্যক্ষকে জায়গাটির সীমানা মাপার জন্য জেলা জজ বরাবর চিঠি দিতে বলেছি এবং মাহাবুবুল আলমকে সীমানা টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে রাখতে বলেছি। পরে রেজিয়া বেগমের বড় ছেলে জাভেদ আমার কাছে এলে আমি জেলা জজের সাথে কথা বলে তাকে জানিয়ে দিই যে, জেলা জজ নতুন করে আর কোন জায়গা লিজ বা বর্ধিত করবেন না।
নিজাম উদ্দিনের বড় ছেলে জাভেদ হোসেন বলেন, যখন থেকে ডিবি রোড ফোর লেন হওয়ার সিদ্ধান্ত হয় ঠিক তখন থেকেই আমাদের এই দোকানের পিছনের জায়গা নানাভাবে দখল নেওয়ার চেষ্টা করে মাহাবুবুল আলম। যদিও তিনি জজ কোর্টের ৯/৯ ফুট জায়গার জজ কোর্ট থেকে লিজ নিয়ে আছেন। কিছুদিন আগে নায়েব নাজির সুমনের সহযোগিতায় তিনি আমাদের পিছনের জায়গাটি দখল নেন। পরে বর্তমান নাজির শাহিনের নির্দেশে দোকানঘর নির্মাণ করেন।
জাভেদ হোসেন আরও বলেন, জেলা ও দায়রা জজ যদি নতুন করে কোন লিজ বা দোকান লিজ বর্ধিত না করেন তবে কি করে মাহাবুবুল আলম তার দোকান ঘর নতুন করে লিজ বা লিজ বর্ধিত করলো?
বিষয়টি নিয়ে বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলের অধ্যক্ষ এ. কে. এম. শফিকুর রহমান বলেন, কিছুদিন আগে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Develpment by : JM IT SOLUTION